খাসোগিকে হয়ত টুকরো করে তন্দুরের ওভেনে পো’ড়ানো হয়েছে

প্রকাশিত: জুলা ৪, ২০২০ / ০৯:১৫অপরাহ্ণ
খাসোগিকে হয়ত টুকরো করে তন্দুরের ওভেনে পো’ড়ানো হয়েছে

ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাসোগি হ’ত্যা’র ঘটনায় ২০ আসামির অনুপস্থিতিতে বিচার শুরু হয়েছে তুরস্কের আদালতে। শুক্রবার তুর্কি আদালতে ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে ওই সময় উপস্থিত সৌদি দূতাবাস কর্মী জাকি দামির জানিয়েছেন, খাসোগি তুরস্কের সৌদি দূতাবাসে ঢোকার পরই তন্দুর চুলা প্রায় এক ঘণ্টা জ্বা’লি’য়ে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

এ হ’ত্যা’কা’ণ্ডটি বিশ্বজুড়ে স’মা’লোচিত হয়। খাসোগি হ’ত্যা’র বিচারের প্রথম দিনে কনস্যুলেটের টেকনিশিয়ান জাকি দামির সাক্ষ্য দেন।
তিনি বলেন, খাসোগি তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে দূতাবাসে ঢোকার পর তাকে আবাসিক ভবনে ডাকা হয়।

সেখানে পাঁচ–ছয়জন ব্যক্তি ছিলেন। তাঁরা আমাকে তন্দুরের ওভেন জ্বা’লা’তে বলেন। সেখানে পরিবেশ থমথমে ছিল। সৌদি রাজ পরিবারের স’মা’লোচক ছিলেন সাংবাদিক জামাল খাসোগি। একারণেই তিনি দেশটি থেকে নির্বাসিত ছিলেন।

খাসোগি যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী সংবাদ মাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টে নিয়মিত কলাম লিখতেন। ২০১৮ সালের অক্টোবরে বিয়ের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে জামাল খাসোগি ওই দূতাবাসে যান। এরপর থেকেই নিখোঁজ থাকেন তিনি।

সে সময় দূতাবাসের বাইরে অপেক্ষা করতে থাকেন খাসোগির বাগদত্তা। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ বলছে, সৌদি প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান এই হ’ত্যা’কা’ণ্ডের নির্দেশ দেন বলে তাদের ধারণা। তবে সৌদি কর্মকর্তারা এই অ’ভি’যোগ অস্বীকার করেছেন।

খাসোগি হ’ত্যা নিয়ে প্রথম থেকেই সরব ছিল তুরস্ক। দেশটি বরাবরই এটিকে হ’ত্যা’কা’ণ্ড বলে উল্লেখ করেছে। দেশটির কর্মকর্তারা বলছেন, পুলিশের ধারণা, হ’ত্যা’কারীরা খাসোগির লা’শ পু’ড়ি’য়ে অথবা টুক’রো করে কেটে উধাও করে দেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছে।

সৌদি গোয়েন্দা বিভাগের সাবেক উপপ্রধান আহমেদ আল আসিরি ও রাজকীয় আদালতের সাবেক উপদেষ্টা সৌদ আল কাহতানির বি’রু’দ্ধে ভয়া’ন’ক উদ্দেশ্য নিয়ে হ’ত্যা’য় প্ররোচিত করার অ’ভি’যোগ আনা হয়েছে।

খাসোগিকে হ’ত্যা’র জন্য আরও ১৮ আ’সা’মি তুরস্কে গিয়েছিলেন বলেও অ’ভি’যোগ রয়েছে। আ’সা’মিদের অনুপস্থিতিতে বিচারকাজ চলছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকে এসব আ’সা’মিদের হস্তান্তর করার সম্ভাবনাও কম।

গত বছরের ডিসেম্বরে খাসোগি হত্যার ঘটনায় সৌদি আদালত পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন ও তিনজনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
পরে খা’সো’গির পরিবার বলেছে, তারা হ’ত্যা’কা’রীদের ক্ষ’মা করেছে। সৌদি আইন অনুসারে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের মুক্তির অনুমোদন দিয়েছে।

সূত্র: রয়টার্স

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন