ইরানি তেলের দ্বিতীয় ট্যাংকারও বিনা বাধায় ভেনিজুয়েলায় পৌঁছে গেল

প্রকাশিত: মে ২৫, ২০২০ / ০৮:৩৭অপরাহ্ণ
ইরানি তেলের দ্বিতীয় ট্যাংকারও বিনা বাধায় ভেনিজুয়েলায় পৌঁছে গেল

মার্কিন হু’ম’কি উপেক্ষা করে ইরানের পতাকাবাহী দ্বিতীয় তেল ট্যাংকার ‘ফরেস্ট’ ভেনিজুয়েলার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের পানিসীমায় প্রবেশ করেছে।

আজ সোমবার সকালে ভেনিজুয়েলার পানিসীমায় প্রবেশ করার পর দেশটির নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীর সেনারা ইরানি তেল ট্যাংকারকে স্কর্ট করে ভূ-ভাগের দিকে নিয়ে যায়। এসময় আশপাশে মার্কিন কোনো যু’দ্ধ’জাহাজকে দেখা যায়নি।

এর একদিন আগে অর্থাৎ রোববার সকালে ইরানের প্রথম তেল ট্যাংকার ‘ফরচুন’ ভেনিজুয়েলার পানিসীমায় প্রবেশ করে। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী- এরই মধ্যে দুটো ট্যাংকারই ভেনিজুয়েলার ইআই পালিটো বন্দরে পৌঁছে গেছে। ‘ক্ল্যাভেল’, ‘ফ্যাকসন’ ও ‘পতুনিয়া’ নামের অপর তিনটি তেল ট্যাংকার ভেনিজুয়েলার পানিসীমার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

ভেনিজুয়েলা তেলসমৃদ্ধ দেশ হলেও সাম্প্রতিক সময়ে দেশটির তেল শোধানাগারগুলো অচল হয়ে পড়ার কারণে পরিশোধিত তেলের অভাবে পড়ে দেশটি।

এ অবস্থায় সম্প্রতি দু’দেশের ওপর আমেরিকার অ’বৈ’ধ ও একতরফা নি’ষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইরানের পাঁচটি তেল ট্যাংকার ভেনিজুয়েলার জন্য ৪৩ মিলিয়ন লিটার পরিশোধিত তেল ও তেলজাত পণ্য নিয়ে দেশটির উদ্দেশে যাত্রা করে।

এ খবর পাওয়ার পর মার্কিন সরকার গত ১৪ মে হু’ম’কি দেয়, ইরানের তেল ভেনিজুয়েলায় সরবরাহের বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা ভাবছে ওয়াশিংটন।

পরবর্তীতে জাতিসংঘে নিযুক্ত ভেনিজুয়েলার স্থায়ী প্রতিনিধি জানান, আমেরিকা ইরানি তেল ট্যাংকারকে বলপূর্বক বাঁধা দেয়ার হু’ম’কি দিয়েছে। কোনো কোনো পশ্চিমা গণমাধ্যমে এ খবরও প্রকাশিত হয়, ইরানি তেল ট্যাংকারকে বাধা দিতে আমেরিকা ক্যারিবীয় সাগরে নৌবাহিনী পাঠিয়েছে।

ক্যারিবিয় সাগরে মার্কিন যু’দ্ধ’জাহাজ পাঠানোর খবর প্রকাশ হওয়ার পর ইরান ও ভেনিজুয়েলা উভয় দেশের পক্ষ থেকে পাল্টা হু’ম’কি এবং ইরানের পক্ষ থেকে পারস্য উপসাগরে আমেরিকাকে একই পরিণতি বরণ করতে হবে বলে হুঁ’শি’য়ারি দেয়া হয়।

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি ক্যারিবিয়ান সাগরে মার্কিন উ’স্কা’নিমূলক তৎপরতার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘ক্যারিবিয়ান সাগর বা অন্য কোথাও যদি আমাদের তেল ট্যাংকার আমেরিকার হাতে বিপদের সম্মুখীন হয় তাহলে তারাও (আমেরিকা) অন্য কোথাও একই ধরনের বিপদের মুখে পড়বে।’

তিনি শনিবার কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলে থানি’র সঙ্গে এক টেলিফোনালাপে এই হুঁ’শি’য়ারি উচ্চারণ করেন। এরপরই আমেরিকা ইরানি ট্যাংকারে বাধা দেওয়ার পরিকল্পনা থেকে সরে আসে বলে মনে করা হচ্ছে।

সূত্র- পার্স টুডে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন