পশ্চিমবঙ্গে ‘আম্পানের তা’ণ্ডবে ১০-১২ জন নিহ’ত’

প্রকাশিত: মে ২১, ২০২০ / ০২:০৩পূর্বাহ্ণ
পশ্চিমবঙ্গে ‘আম্পানের তা’ণ্ডবে ১০-১২ জন নিহ’ত’

সুপার সাই’ক্লোন আম্পানের আ’ঘা’তে ১০-১২ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরকারি বাসভবন নবান্নে স্থানীয় সময় বুধবার রাত ৯টায় সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।

মমতা বলেন, দুই ২৪ পরগনা ধ্বং’স হয়ে গেছে…বাড়িঘর, নদী বাঁধ ভে’ঙে গেছে, ক্ষেত ভেসে গেছে। মুখ্যমন্ত্রী জানান, আম্পানের আ’ঘা’তে এখন পর্যন্ত ১০ থেকে ১২ জনের মৃ’ত্যু’র খবর এসেছে। তবে প্রকৃত সংখ্যাটা এখনই বলা যাবে না।

সারাদিনই নবান্নের কন্ট্রোল রুম থেকে ঝড়ের গতিপ্রকৃতি খোঁজখবর রাখছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী জানান, পাথরপ্রতিমা, নামখানা, বাসন্তী, কুলতলি, বারুইপুর, সোনারপুর, ভাঙড় থেকে যা খবর এসেছে তা ভ’য়া’বহ।

খারাপ খবর উত্তর ২৪ পরগনা থেকেও। তবে ক্ষ’য়ক্ষতি কতটা হয়েছে, সেই সং’ক্রা’ন্ত বিস্তারিত তথ্য পেতে ৩-৪দিন লেগে যাবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, এলাকার পর এলাকা ধ্বং’স হয়ে গেছে।

যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। প্রশাসন ও সাধারণ মানুষের সাহায্যে ৫ লাখ মানুষকে সরাতে পেরেছি। নন্দীগ্রাম ও রামনগরসহ একাধিক এলাকায় ব্যাপক ক্ষ’তি হয়েছে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, নন্দীগ্রাম, রামনগর প্রভৃতি এলাকায় বড় ক্ষতি। দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগনা প্রায় ধ্বং’স ঝড়ের দাপটে। গাছ পড়ে মানুষ মারা গেছেন। মোট ক্ষ’তি এখনও গণনা করা যায়নি।

অনেক জায়গায় বিদ্যুৎ নেই, পানি নেই। পাথরপ্রতিমা, নামখানা, কাকদ্বীপ, কুলতলি, বারুইপুর, সোনারপুর সব জায়গায় ধ্বং’সের ছবি। রাজারহাট, হাসনাবাদ, সন্দেশখালি, গোসাবা, হাবড়া সব জায়গাই বি’প’র্যস্ত।

সুত্রঃ যুগান্তর

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন