করেন মা’দকবি’রোধী প্রচারণা, কিন্তু তিনি নিজেই ‘মা’দক সম্রাট’

প্রকাশিত: মে ১৮, ২০২০ / ১১:০৪অপরাহ্ণ
করেন মা’দকবি’রোধী প্রচারণা, কিন্তু তিনি নিজেই ‘মা’দক সম্রাট’

মা’দ’কের বি’রু’দ্ধে সামাজিক মাধ্যমে সবসময় সোচ্চার থাকতেন রাজু আহম্মেদ (৩০)। নিজের ফেসবুক আইডিতে সব সময় মা’দ’ক’বি’রো’ধী পোস্ট দিতেন। প্রশাসনের বড় বড় কর্মকর্তা আর রাজনৈতিক নেতাদেরও ছবি পোস্ট করতেন নিয়মিত।

মা’দ’ক’বি’রোধী প্রচারণার জন্য নিজেই খুলেন একটি ফেসবুক পেজও। সেখানে মাদক কারবারিদের প্র’তি’রোধের ডাক দিতেন। আর সর্বত্র পরিচয় দিতেন র‌্যাবের সোর্স বলে। কিন্তু সেই রাজু আহম্মেদই শনিবার দিনগত গভীর রাতে গ্রে’ফ’তার হয়েছেন বিপুল পরিমাণ মা’দ’কদ্রব্যসহ র‌্যাবের হাতেই।

র‌্যাব-৫ এর রাজশাহীর মোল্লাপাড়া ক্যাম্পের একটি দল শনিবার দিবাগত গভীর রাতে নিজের বাড়ি থেকেই বিপুল পরিমাণ মা’দ’কদ্রব্যসহ রাজুকে গ্রে’ফ’তার করেছে। রাজু রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বিদিরপুর গ্রামের আবদুল মান্নান সেন্টুর ছেলে।

র‌্যাব-৫ এর দেয়া তথ্যানুযায়ী, অ’ভি’যানে রাজুর বাড়িতে পাওয়া গেছে ৮০০ গ্রাম হেরোইন ও ৩০০টি ই’য়া’বা বড়ি। এর আগে ২০১৫ সালেও ফে’ন’সিডিলসহ একবার র‌্যাবের হাতেই গ্রে’ফ’তার হয়েছিলেন রাজু। তারপর কিছুদিন কা’রা’গারে ছিলেন।

এক বছর পর জে’ল থেকে বের হয়েই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখকে আড়াল করতে তিনি ফেসবুকে মা’দ’ক’বি’রোধী প্রচারণা শুরু করেন। নিজেকে র‌্যাবের সোর্স পরিচয় দিয়ে গোদাগাড়ীর অন্য মা’দ’ক কার’বারিদেরও ভয় দেখাতেন ধরিয়ে দেবে বলে। আদায় করতেন টাকা।

র‌্যাব-৫ এর কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এটিএম মাইনুল ইসলাম বলেন, মা’দ’কদ্রব্যসহ রাজু আগে একবার আ’ট’ক হয়েছিল জানতে পেরে তার পেছনে গোয়েন্দা নজরদারি চলে।

শনিবার রাতে আমরা খবর পাই, পাঁচ কেজি হেরোইন সীমান্ত এলাকা থেকে তার কাছে আসবে। তখন সাদা পোশাকে তাকে অনুসরণ করি। টের পেয়ে রাজু পা’লি’য়ে যায়। গভীর রাতে বাড়ি ফিরে আসে।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরও বলেন, পরে আমরা নিশ্চিত হই যে সে হেরোইন ও ই’য়া’বা নিয়েই বাড়ি ঢুকেছে। তাই প্রতিবেশী চার-পাঁচজন লোক নিয়ে আমরা তার বাড়িতে অ’ভি’যান শুরু করি। তার ঘরেই পাওয়া যায় ৮০০ গ্রাম হেরোইন ও ৩০০ পিস ই’য়া’বা বড়ি। আমরা তাকে হাতেনাতে গ্রে’ফ’তার করি।

এটিএম মাইনুল ইসলাম জানান, রোববার বিকালে রাজুকে গোদাগাড়ী থানায় হস্তান্তর করে তার বি’রু’দ্ধে মা’দ’কদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মা’ম’লা করা হয়েছে। মা’ম’লাটি তারা নিজেরাই তদন্ত করতে চান। রি’মা’ন্ডে নিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার।

এদিকে আ’ট’ক হওয়ার আগে র‌্যাবের সামনে থেকে পা’লিয়ে যাওয়ার পর বাড়িতে ঢুকেই রাজু তার নিজের ফেসবুক আইডিতে দুটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। একটিতে তিনি লিখেছেন, ‘পৃথিবীতে কেউই খারাপ হয়ে জন্মায় না। পরিবেশ আর পরিস্থিতি জীবনটাকে পাল্টে দেয়।’

আরেকটি স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘সব অপ’রাধের ক্ষমা আছে! কিন্তু বিশ্বাসঘা’তকতার কোনো ক্ষমা নাই।’ এ দুটি স্ট্যাটাস দেয়ার কিছুক্ষণ পরই র‌্যাবের হাতে গ্রে’ফ’তার হন গোদাগাড়ীর অন্যতম শীর্ষ এই মা’দ’ক কার’বারি।

সুত্রঃ যুগান্তর

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন