১০০ দিনে ৮ লাখ মানুষ হ’ত্যা’র অন্যতম অভিযুক্ত গ্রেফতার

প্রকাশিত: মে ১৭, ২০২০ / ১০:১১পূর্বাহ্ণ
১০০ দিনে ৮ লাখ মানুষ হ’ত্যা’র অন্যতম অভিযুক্ত গ্রেফতার

রুয়ান্ডা গণ’হ’ত্যা’র অন্যতম সন্দেহভাজন ফেলিসিয়ে কাবুগা ২৬ বছর পালিয়ে থাকার পর ফ্রান্সে আটক হয়েছেন। শনিবার (১৬ মে) গ্রেফতার হওয়ার পর তাকে সেখানেই অন্তরীণ রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির বিচার মন্ত্রণালয়। রুয়ান্ডার ৮৪ বছর বয়সী এই সাবেক ব্যবসায়ীর বিরু’দ্ধে ১০০ দিনে আট লাখ মানুষ হ’ত্যায় সশ’স্ত্র গো’ষ্ঠীকে অর্থ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

১৯৯৪ সালের এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত ১০০ দিনের মধ্যে প্রাণ হারিয়েছিল রুয়ান্ডার প্রায় আট লাখ নাগরিক। ২৫ বছর আগে শুরু গ’ণহ’ত্যা’র শিকার অধিকাংশই সংখ্যালঘু তুতসি সম্প্রদায়ের মানুষ ছিল। গণহ’ত্যা পরিচালনাকারীরা ছিল হুতু সম্প্রদায়ের। যদিও রুয়ান্ডাতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছিল নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার, কিন্তু তারপরও এত অল্প সময়ে বিশালসংখ্যক মানুষকে হ’ত্যা করার কথা চিন্তা করাও ছিল কল্পনাতীত।

শনিবার ফ্রান্সের বিচার বিভাগের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, নিজের পরিচয় লুকিয়ে কাবুগা প্যারিসের একটি আবাসিক ফ্লাটে বসবাস করে আসছিলো। কাবুগার বিরু’দ্ধে ১৯৯৪ সালে রুয়ান্ডায় গণহ’ত্যা চালানো ও মানবতার বিরু’দ্ধে অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ রয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে। আফ্রিকার দেশ রুয়ান্ডার মোস্ট ওয়ান্টেড এই ব্যক্তির মাথার মূল্য ৫০ লাখ ডলার ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র।

রুয়ান্ডার দুটি মূল নৃতাত্বিক জনগোষ্ঠী হুতু ও তুতসি। ঐতিহাসিকভাবে দুটি গোষ্ঠী পরস্পরের প্রতিদ্বন্দ্বি। ১৯৯০ এর দশকে জনগোষ্ঠী দুটি গৃহযুদ্ধে জড়ায়। হুতু ব্যবসায়ী ফেলিসিয়েন কাবুগার বিরু’দ্ধে ১৯৯৪ সালে একশো দিনের মধ্যে আট লাখ তুতসিকে হ’ত্যায় স’শস্ত্র গোষ্ঠী’কে অর্থ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। জাতিসংঘের গঠিত একটি আদালত কাবুগাকে ১৯৯৭ সালে সাত ধরনের অভিযোগে অভিযুক্ত করে। তবে তার আগেই সে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যায়।

শনিবার ফ্রান্সের বিচার মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, রুয়ান্ডা গ’ণহ’ত্যা’র অর্থদাতা হিসেবে পরিচিত ফেলিসিয়েন কাবুগা ১৯৯৪ সাল থেকে জার্মানি, বেলজিয়াম, কঙ্গো-কিনশাসা, কেনিয়া কিংবা সুইজারল্যান্ডে পালিয়ে বিচার এড়িয়ে গেছে। ওই বিবৃতিতে জানানো হয় গ্রেফতারের পর এই পলাতক ব্যক্তিতে প্যারিসের আপিল আদালতে তোলা হবে আর পরে তাকে হেগের আন্তর্জাতিক আদালতের কাছে তুলে দেওয়া হবে।

জাতিসংঘের এক ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, গণহ’ত্যায় ব্যবহৃত বিপুল পরিমাণ তলোয়ার, নিড়ানি এবং অন্যান্য কৃষিযন্ত্রপাতি কেনার জন্য দায়ী ফেলিসিয়েন কাবুগা। এসব যন্ত্রপাতি গ’ণহ’ত্যা’র অ’স্ত্র হিসেবে ব্যবহার হয়েছে। রুয়ান্ডা গণহ’ত্যায় আরও দুই সন্দেহভাজন এখনও পলাতক রয়েছে। তারা হলো অগাস্টিন বিজিমানা ও প্রোতাইস এমপিরিয়ানিয়া।

হুতু জনগোষ্ঠীর সদস্য ও প্রভাবশালী ব্যবসায়ী কাবুগা মিলিশিয়াদের অর্থ দিয়ে গণহ’ত্যায় উৎসাহিত করতেন। আরটিএলএম নামের একটি প্রচার মাধ্যম চালু করে সেখান থেকে সংখ্যালঘু তুতসিদের বিরু’দ্ধে তথ্য সংগ্রহ করে তাদের হ’ত্যা করার জন্য ইন্ধন জোগাতেন তিনি।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন