কক্সবাজারে ধরা পড়ল ‘করোনা আক্রান্ত’ প্রথম দুই রোহিঙ্গা

প্রকাশিত: মে ১৫, ২০২০ / ১২:২৪পূর্বাহ্ণ
কক্সবাজারে ধরা পড়ল ‘করোনা আক্রান্ত’ প্রথম দুই রোহিঙ্গা

শেষ পর্যন্ত ক’রো’না প’জিটিভের তালিকায় রোহিঙ্গাও অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৪ মে) কক্সবাজার সরকারি মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে ১২ জন ক’রো’না পজিটিভের মধ্যে রয়েছেন দুই রোহিঙ্গাও।

আজ মোট ১৮৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয় মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে। তন্মধ্যে দুজন রোহিঙ্গাসহ ১২ জন ক’রো’না পজিটিভ বলে শনাক্ত করা হয়।

এদিকে রোহিঙ্গা শিবিরে এই প্রথম দুই রোহিঙ্গা ক’রো’না পজিটিভ শনাক্ত হওয়ার খবরে সীমান্ত জনপদ উখিয়া-টেকনাফ তথা গোটা কক্সবাজার জেলায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছে।

আজ বিকালে মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে টেস্টের ফলাফলে দুই রোহিঙ্গা পজিটিভের খবর প্রচারের পর পরই কক্সবাজারের আনাচে-কানাচে স্থানীয়দের মধ্যে চ’রম উৎকণ্ঠার সুর লক্ষ্য করা যায়।

বিশেষ করে সীমান্তবর্তী উখিয়া-টেকনাফের লোকজন বলতে শুরু করেছেন- ‘আমাদের আর রক্ষা নেই। রোহিঙ্গা শিবির আ’ক্রা’ন্ত হওয়া মানেই আমরা স্থানীয়রা অর্ধেকই আ’ক্রা’ন্ত হয়ে পড়েছি।’

ক’রো’না পজিটিভে শনাক্ত হওয়া রোহিঙ্গাদ্বয় হচ্ছেন কক্সবাজারের উখিয়ার এক নম্বর লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা শিবিরের বাসিন্দা। তাদের একজন ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট পরবর্তী সময়ে এসেছেন এবং অপরজন তারও আগে মিয়ানমারের রাখাইন থেকে এসে আশ্রয় নিয়েছেন উখিয়ার কুতুপালং শিবিরের লম্বাশিয়া এলাকায়।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বৃহস্পতিবার বিকালে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। শনাক্ত হওয়া দুই রোহিঙ্গাকে এমএসএফ ও আইওএম-এর আইসোলেশন কেন্দ্রে রাখা হয়েছে।

রোহিঙ্গা শিবিরে প্রায় ২ হাজার জনের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন আইসোলেশন কেন্দ্র তৈরি করা হচ্ছে। তন্মধ্যে ৫ শতাধিক রোগীকে ইতিমধ্যে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

রোহিঙ্গা শিবিরে এই প্রথম দুই রোহিঙ্গা ক’রো’না পজিটিভ শনাক্ত হওয়ার খবরে সীমান্ত জনপদ উখিয়া-টেকনাফ তথা গোট কক্সবাজার জেলায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে কক্সবাজার সরকারি মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম বড়ুয়া জানান, আজ পর্যন্ত কক্সবাজার জেলার ৮ উপজেলায় ১৩২ জন ক’রো’না পজিটিভ পাওয়া গেছে। তন্মধ্যে চকরিয়া উপজেলায় করোনা পজিটিভ রয়েছেন ৩৭ জন,

কক্সবাজার সদর উপজেলায় ৩৫ জন, পেকুয়া উপজেলায় ২০ জন, মহেশখালী উপজেলায় ১২ জন, উখিয়া উপজেলায় ১৪ জন, টেকনাফ উপজেলায় ৭ জন, রামু উপজেলায় ৪ জন এবং রোহিঙ্গা হচ্ছেন ২ জন।

কক্সবাজারে এ পর্যন্ত একজন ক’রো’না আ’ক্রা’ন্ত রোগী মা’রা গেছেন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৩ জন রোগী।

সুত্রঃ কালের কন্ঠ

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন