করোনার নতুন হটস্পট যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন

প্রকাশিত: মে ৬, ২০২০ / ০৮:১৬অপরাহ্ণ
করোনার নতুন হটস্পট যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন

এক মাসের বেশি সময় ঘরে অবস্থানের নির্দেশনা সত্ত্বেও ওয়াশিংটন অঞ্চল করো’না’ভা’ইরাসের হট স্পট হয়ে উঠছে। যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানীতে বিশেষ করে আফ্রিকান-আমেরিকান ও লাতিন জনগোষ্ঠীর লোকরা সবচেয়ে বেশি আ’ক্রা’ন্ত হচ্ছে।

ওয়াশিংটন এবং পার্শ্ববর্তী অঙ্গরাজ্য ম্যারিল্যান্ড ও ভার্জিনিয়ায় বর্তমানে ৫০ হাজারের বেশি লোক কোভিড-১৯-এ আ’ক্রা’ন্ত এবং প্রায় দুই হাজার ৩০০ লোক মা’রা গেছে।

ম্যারিল্যান্ডের গভর্নর ল্যারি হোগান এপ্রিলের প্রথমদিকে আশঙ্কা করেছিলেন, নিউইয়র্কের পরে এই অঞ্চল মহা’মা’রির অন্যতম কেন্দ্রস্থলে পরিণত হবে। মার্চের শেষ দিক থেকে লকডাউন ও স্কুল বন্ধ এবং জরুরি নয়

এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সত্ত্বেও এই অঞ্চলে আ’ক্রা’ন্তের সংখ্যা, হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, খবর এএফপি।

ওয়াশিংটন সীমান্তের কাছে ম্যারিল্যান্ডের মন্টোগেমারি কাউন্টির স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের প্রধান ট্রাভিস গ্যালেস বলেন, ‘আমরা উচ্চ জনবসতি ও জনঘনত্বপূর্ণ এলাকায় আছি। জরুরি কাজে নিয়োজিত আমাদের বিপুল শ্রমিক রয়েছে ,তাদের কাজে যেতে হয়, সেখানে সং’ক্র’মন ছড়িয়ে পরার বড় আ’শ’ঙ্কা রয়েছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানীর উত্তরে মন্টোগোমারি কাউন্টিতে ১০ লাখের মতো লোক বাস করে। মঙ্গলবার পর্যন্ত সেখানে পাঁচ হাজার ৫৪১ জন ক’রো’না আ’ক্রা’ন্ত শনাক্ত হয়েছে এবং ২৯২ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। গোটা ম্যারিল্যান্ডে ক’রো’না আ’ক্রা’ন্তের সংখ্যা ২৬ হাজার ৪০০ জন এবং মোট মা’রা গেছে এক হাজার ৩০০ জন।

অনেক এলাকার জরুরি শ্রমিক আফ্রিকান-আমেরিকান এবং লাতিন জনগোষ্ঠীর লোক, তাদের সং’ক্র’মন এবং মৃ’ত্যুর হার হোয়াইটদের তুলনায় বেশী।

গ্যালেস বলেছেন, ‘তারা সাধারণত দুই বেডরুমের বাসায় দুই পরিবার থাকে। তাদের একজনের ক’রো’না পজিটিভ হলে অন্যদেরমধ্যে ছড়িয়ে পড়ে, সেখানে আইসোলেশনের কোনো সুযোগ নেই।’

ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যে ১৫ মে থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশনা মেনে ল’ক’ডাউন শিথিল করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তবে ল’ক’ডাউন শিথিল করার মতো অবস্থা তৈরি হয়নি এমন চাপও রয়েছে। ভার্জিনিয়ায় এ পর্যন্ত ১৯ হাজার ৫০০ লোক ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত হয়েছে এবং মা’রা গেছে ৭০০ জন।

সুত্রঃ কালের কন্ঠ

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন