এই ছয়টি পদক্ষেপ পূর্ণ হলে খুলে দেয়া হবে মালয়েশিয়ার লকডাউন

প্রকাশিত: এপ্রি ২৩, ২০২০ / ০৮:৫৪পূর্বাহ্ণ
এই ছয়টি পদক্ষেপ পূর্ণ হলে খুলে দেয়া হবে মালয়েশিয়ার লকডাউন

মালয়েশিয়া বর্তমানে চলছে লকডাউন, তিন দফায় বাড়ানো হয় লকডাউন আগামী এপ্রিলে 28 তারিখ পর্যন্ত মালয়েশিয়া সরকার ঘোষণা করে লকডাউন। মালয়েশিয়ায় বর্তমানে করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে এসেছে তারপরও মালয়েশিয়া সরকার 6 টি পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে যেগুলি পূর্ণ করা হলে খুলে দেয়া হবে মালয়েশিয়ায় লকডাউন।

মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক নুর হিসাম তিনি বলেছেন মালয়েশিয়ার মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা চলছে, তিনি বলেন মন্ত্রণালয় থেকে ছয়টি বিষয়কে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে বিষয়টি হলো মালয়েশিয়ায় করোনাভাইরাস মোকাবেলা করার জন্য প্রথম পদক্ষেপটি সেটি হল বর্ডার কন্ট্রোল,

তিনি বলেন বর্তমানে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি দেশে মোটামুটি স্থিতিশীল রয়েছে এবং কমে যাচ্ছে আমরা আশঙ্কা করছি যদি বর্ডার খুলে দেয়া হয় তাহলে ব্যাপকহারে লোকসমাগম করবে ব্যাপকহারে বিদেশীরা এবং মালয়েশিয়ান যারা বিদেশে আছে তারা এ দেশে ব্যাপকহারে প্রবেশ করবে যার ফলে এদেশে ভইরাস আবার প্রবেশ করবে যার ফলে এদেশে ভাইরাস মোকাবেলা করা আবার কঠিন হয়ে পড়বে তাই বর্ডার কন্ট্রোল প্রথমে নিশ্চিত করতেহবে।

দ্বিতীয় পদক্ষেটি হলো যারা এদেশের অর্থনৈতিক এবং প্রোডাকশন উৎপাদন খাতে কাজ করে তাদের জন্য নিয়ম সহজ করা হবে এবং যারা যে সকল স্থানে পার্কে রিসোর্সে মানুষ ব্যাপকহারে সমাগম করে সেগুলি বন্ধ রাখা হবে যার ফলে লকডাউন খুলে দেয়ার পরেও কিছু কিছু মানুষকে নিজ বাসায় থাকতে হবে পরিস্থিতি পুরোপুরি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত।

তৃতীয় পদক্ষেপটি হল মালয়েশিয়ায় লকডাউন খুলে দেয়া হলেও এদেশে কর্মঘন্টা কমিয়ে আনা হবে পূর্বে মালয়েশিয়ায় কিছু কিছু রেস্টুরেন্ট এলাকা 24 ঘন্টা খোলা থাকতো সেগুলি ঘন্টা কমিয়ে আনা হবে যার ফলে ব্যাপক সমাগম কন্ট্রোল করা মোটামুটি সম্ভব হবে রেস্টুরেন্ট হোটেল শপিং মল এই সকল গুলিকে সময় বেঁধে দেয়া হবে।

চতুর্থ বিষয়টি হচ্ছে মালয়েশিয়ায় বর্তমানে যে হসপিটাল গুলো রয়েছে সেগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ আইসিও এবং চিকিৎসার জন্য ব্যাপকহারে প্রস্তুতি নিতে হবে কারণ আবার যদি রোগীর সংখ্যা বেড়ে যায় তাহলে সরকারকে হিমশিম খেতে হবে তাই মালয়েশিয়া সরকার আগেভাগেই নিশ্চিত করতে চায় মালয়েশিয়ার সকল হসপিটালে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে যদি রোগীর সংখ্যা বেড়ে যায় লকডাউন খুলে দেয়ার পরে।

পঞ্চম বিষয়টি হলো মালয়েশিয়া সাধারণ জনগণের মধ্যে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স বজায় রাখার মানসিকতা তৈরি হতে হবে কারণ ব্লক খুলে দেয়ার ফলে যদি আবার মানুষ রাস্তাঘাটে বিভিন্ন জায়গায় এলোপাতাড়ি এবং অনিয়ম করে চলাফেরা করে মানুষের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব বজায় না রাখে তাহলে ভাইরাস সংক্রমণ হতে পারে তাই মালয়েশিয়ার সকল নাগরিক এবং এদেশে থাকা অভিবাসী সবাইকে আগামী কয়েক মাস সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং মুখে মাক্স পরে চলতে হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন