যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় ২৮০৩ জনের রেকর্ড প্রাণহানি

প্রকাশিত: এপ্রি ২২, ২০২০ / ০৩:২৪অপরাহ্ণ
যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় ২৮০৩ জনের রেকর্ড প্রাণহানি

বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণে মৃত্যুর সংখ্যা এক লাখ ৭৭ হাজার ছাড়িয়েছে। তবে মৃতের সংখ্যায় সব দেশকে ছাড়িয়ে গেছে যুক্তরাষ্ট্র।

বিশ্বে সবচেয়ে পরাক্রমশালী এ দেশটি এখন মৃত্যুপুরী। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছে দুই হাজার ৮০৩ জন।

একদিনে যে কোনো দেশের চেয়ে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর রেকর্ড এটি। এ মহামারীতে এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে মারা গেছে ৪৫ হাজার ৩৪৫ জন। আ’ক্রান্তের দিক থেকেও শীর্ষে অবস্থান দেশটির। খবর বিবিসি ও আলজাজিরার।

এ পর্যন্ত দেশটিতে আ’ক্রান্ত হয়েছেন ৮ লাখ ১৯ হাজার ১৬৪ জন। শুধু নিউইয়র্কেই মারা গেছে ১৯ হাজার ৬৯৩ জন। আলো ঝলমলে শহরটি এখন মৃত্যুপুরী। গত ২৪ ঘণ্টায় এ শহরে মারা গেছে ৭৬৪ জন।

এ অবস্থায় একদিন আগেও নিউইয়র্কসহ বিভিন্ন রাজ্যে করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া মার্কিন নাগরিকরা লকডাউন তুলে নিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।

নিউইয়র্কের পরই সবচেয়ে বেশি ৪ হাজার ৭৫৩ জন নিউজার্সিতে, এর পর মিশিগানে ২ হাজার ৭০০, ম্যাসাচুসেটসে ১ হাজার ৯৬১, পেনসিলভানিয়ায় ১ হাজার ৬১৪ ও ক্যালিফোর্নিয়ায় ১ হাজার ২৯৮ জন মারা গেছেন।

ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্যানুযায়ী, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসের সংক্রমণে মারা গেছে এক লাখ ৭৭ হাজার ৬৪১ জন।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে এ পর্যন্ত আ’ক্রান্ত হয়েছে ২৫ লাখ ৫৭ হাজার ১৮২ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ছয় লাখ ৯০ হাজারেরও বেশি মানুষ।

পরিসংখ্যান থেকে জানা যাচ্ছে, এ পর্যন্ত যত মানুষ আ’ক্রান্ত হয়েছিল, তার ২১ শতাংশ মানুষ মারা গেছে। করোনায় আ’ক্রান্তদের শতকরা তিন ভাগের অবস্থা আশঙ্কাজনক আর এমন গুরুতর রোগীর সংখ্যা ৫৭ হাজার ২৫৪ জন।

করোনাভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়ে বিশ্বে এ পর্যন্ত যত মানুষ মারা গেছে, তার মধ্যে আমেরিকা এখন সবার শীর্ষে। দেশটিতে এ পর্যন্ত মারা গেছে ৪৫ হাজার ৩৪৫ জন।

এর মধ্যে নিউইয়র্ক শহরে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে। সেখানে গণকবরের ব্যবস্থা করতে হচ্ছে। কোনো কোনো হাসপাতালে লাশ রাখার জায়গা নেই।

এ ছাড়া স্পেনে আ’ক্রান্ত ২ লাখ ৪ হাজার ১৭৮, মারা গেছে ২১ হাজার ২৮২ জন। ইতালিতে আ’ক্রান্ত ১ লাখ ৮৩ হাজার ৯৫৭, মারা গেছে ২৪ হাজার ৬৪৮ জন। ফ্রান্সে আ’ক্রান্ত ১ লাখ ৫৮ হাজার ৫০, মারা গেছে ২০ হাজার ৭৯৬ জন। জার্মানিতে আ’ক্রান্ত ১ লাখ ৪৮ হাজার ৪৫৩, মারা গেছে ৫ হাজার ৮৬ জন।

যুক্তরাজ্যে ‘আ’ক্রান্ত ১ লাখ ২৯ হাজার ৪৪, মারা গেছে ১৭ হাজার ৩৩৭ জন। তুরস্কে আ’ক্রান্ত ৯৫ হাজার ৫৯১, মারা গেছে ২ হাজার ২৫৯ জন। ইরানে আ’ক্রান্ত ৮৪ হাজার ৮০২, মারা গেছে ৫ হাজার ২৯৭ জন। চীনে আ’ক্রান্ত ৮২ হাজার ৭৮৮, মারা গেছে ৪ হাজার ৬৩২ জন।

ব্রাজিলে আ’ক্রান্ত ৪৩ হাজার ৭৯, মারা গেছে ২ হাজার ৭৪১ জন। বেলজিয়ামে আ’ক্রান্ত ৪০ হাজার ৯৫৬, মারা গেছে ৫ হাজার ৯৯৮ জন। কানাডাতে আ’ক্রান্ত ৩৮ হাজার ৪২২, মারা গেছে ১ হাজার ৮৩৪ জন। নেদারল্যান্ডসে আ’ক্রান্ত ৩৪ হাজার ১৩৪, মারা গেছে ৩ হাজার ৯১৬ জন।

সুইজারল্যান্ডে আ’ক্রা’ন্ত ২৮ হাজার ৬৩, মারা গেছে ১ হাজার ৪৭৮ জন। সুইডেনে আ’ক্রান্ত ১৫ হাজার ৩২২, মারা গেছে ১ হাজার ৭৬৫ জন। এ ছাড়া ভারতে আ’ক্রান্ত ২০ হাজার ৮০, মারা গেছে ৬৪৫ জন। পাকিস্তানে আ’ক্রান্ত ৯ হাজার ৫৬৫, মারা গেছে ২০১ জন। বাংলাদেশে আ’ক্রান্ত ৩ হাজার ৩৮২, মারা গেছে ১১০ জন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন