টিসিবির পণ্য বেচাকেনায় নেই কোনো সামাজিক দূরত্ব

প্রকাশিত: এপ্রি ১৯, ২০২০ / ০৬:২৭অপরাহ্ণ
টিসিবির পণ্য বেচাকেনায় নেই কোনো সামাজিক দূরত্ব

করো’না’ভা’ইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সরকারের পক্ষ থেকে ব্যাপক গুরুত্বারোপ করা হলেও মানছে না যেন কেউ-ই। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সক্রিয় থাকার কথা বলা হলেও ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) খোলাবাজারে পণ্য বিক্রির ক্ষেত্রে ঠিক বিপরীত চিত্র।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নির্দিষ্ট দূরত্বে লাইনে না দাঁড়িয়ে গা ঘেঁষে গাদা’গাদি করে পণ্য কিনছে মানুষ। তবে সামাজিক দূরত্ব মানতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো সদস্যকে দেখা যায়নি।

যে যার মতো পাশাপাশি দাঁড়িয়ে পণ্য কিনছে। রাজধানীর উত্তর বাড্ডা, কারওয়ানবাজারে টিসিবি ভবনের সামনে ও মোহাম্মদপুরের বছিলা ব্রিজ সংলগ্ন স্থানে পণ্য বিক্রিতে এমন ভিড়ের দৃশ্য দেখা গেছে।

রাজধানীর ৫০টি স্থানে ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রি করছে টিসিবি। আর প্রচলিত বাজারের পণ্যমূল্যের চেয়ে কমমূল্যে পণ্য পেয়ে কিনতে হু’মড়ি খেয়ে পড়েছেন ক্রেতা।

টিসিবির পণ্যে প্রতি কেজি চিনির দাম ৫০ টাকা, মসুর ডাল ৫০ টাকা ও সোয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৮০ টাকা। এ ছাড়াও সামনে রমজানের কারণে খেজুর বিক্রি করছে টিসিবি।

পণ্য কেনার সময় নির্দিষ্ট দূরত্ব অনুযায়ী ক্রেতাদের দাড়ানো বৃত্তও করে দেওয়া হয়েছে। তবে সেটি মানছেন না কোনো ক্রেতা। সামাজিক দূরত্ব না মেনে রীতিমতো একসাথে জড় হয়ে পণ্য কিনছেন অনেকে।

তবে ক্রেতারা সামাজিক দূরত্ব পালন না করলেও অধিকাংশ স্থানে এটি তদারকি করারও কেউ নেই। ফলে করোনাভাইরাসের সং’ক্র’মণ ঝুঁ’কিতে পড়ছেন রাজধানীর নিম্নআয়ের মানুষ।

আজ রবিবার দুপুরে রাজধানীর উত্তর বাড্ডা এলাকায় শতাধিক মানুষকে টিসিবির পণ্য কেনার জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। ট্রাকের সামনে ক্রেতাদের দাড়ানোর জন্য নির্দিষ্ট দূরত্ব অনুযায়ী বৃত্ত করে দেওয়া হলেও সেই বৃত্তে না দাড়িয়ে জড়ো হয়ে চাল কিনতে দেখা গেছে ক্রেতাদের। এ সময় সেখানে কোনো আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যকে দেখা যায়নি।

ইউনুস আলী নামের এক ক্রেতা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অনেক আগে আইছি। প্রথমে নিয়ম মাইনাই দাড়াইছিলাম। কিন্তু দূরে দাড়াইলে মানুষ আইয়া মাঝে ঢুইকা যায়। তাই এক রকম বাধ্য হইয়াই ভিড়ের মইধ্যে কিনতাছি।’

বিলকিস আরা নামের আরেক ক্রেতা বলেন, ‘ভিড় তো আছেই, এর মইধ্যে মেয়েদের লাইনেও অনেকে ঢুকে পড়েছে। কিন্তু এসব দেখার কেউ নাই।

কোনো উপায় না থাকায় ভিড়ের মধ্যে দাড়িয়েই পণ্য কিনতে হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ব না মানার বিষয়ে জানতে চাইলে নিজেদের অসহায়ত্বের কথা জানান বিক্রয়কর্মীরা।

বেলা সাড়ে ১০টার সময় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বছিলা ব্রিজের কাছে টিসিবির পণ্য বিক্রি হচ্ছে। মোহাম্মদপুর থেকে বছিলা ব্রিজমুখী সড়কের বামপাশে বিক্রি হচ্ছে পণ্য।

ছোট একটি ট্রাকের সামনে ভিড় করেছেন কয়েক শ মানুষ। সামাজিক দূরত্বের কোনো বালাই নেই। একজনের সঙ্গে আরেকজন গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে পণ্য কিনতে অপেক্ষা করছেন।

ভিড়ে কাছে গিয়ে জানতে চাইলে চল্লিশোর্ধ্ব শরীফ মিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আধাঘণ্টা অপেক্ষা করে পণ্য কিনতে পারিনি। সামাজিক দূরত্বের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সামনে পেছনে তাকিয়ে কিছুটা সরে দাঁড়ালেন।

বেলা আড়াইটায় কারওয়ানবাজার টিসিবি ভবনের সামনেও পণ্য কিনতে মানুষের ভিড়। আগে টিসিবি ভবন লাগোয়া রাস্তার বামপাশে পণ্য বিক্রি করা হলেও রবিবার দেখা গেছে রাস্তার উপর পণ্য বিক্রি করতে।

লক’ডাউনের কারণে গাড়ির ভিড় তেমন নেই। রাস্তার মাঝখানে পণ্য কিনতে মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য কিনছে। করোনা সং’ক্র’মণ ঠেকাতে তিনফুট দূরত্ব মেনে কাউকে দাঁড়াতে দেখা যায়নি।

সুত্রঃ কালের কন্ঠ

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন