করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না ভৈরবে মারা যাওয়া ইতালি প্রবাসী

প্রকাশিত: মার্চ ২৪, ২০২০ / ০৬:২৯অপরাহ্ণ
করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না ভৈরবে মারা যাওয়া ইতালি প্রবাসী

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মারা যাওয়া ইতালি প্রবাসী ব্যক্তি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না। ষাটোর্ধ্ব এই ব্যক্তি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) বরাত দিয়ে মঙ্গলবার সকালে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডাক্তার বুলবুল আহমেদ।

উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা যুগান্তরকে মঙ্গলবার দুপুর দেড়টায় জানান, তিনি লিখিত প্রতিবেদনের মেইলটি এইমাত্র ঢাকার আইইডিসিআর অফিস থেকে পেয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মারা যাওয়া ওই ব্যক্তি ১৭ বছর যাবৎ ইতালিতে থাকেন। ইতালির পরিস্থিতি খারাপ দেখে তিনি গত ২৮ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরে আসেন। তবে ওই ব্যক্তি ইতালি থেকে ভৈরব ফেরার পর স্থানীয় প্রশাসন বা করোনা প্রতিরোধ কমিটিকে অবগত করেনি। তাই করোনা কমিটির সভাপতি বা সদস্য সচিবের অফিস তালিকায় তার নাম ছিল না।

প্রতিবেশীরা ঘটনাটি জানার পরও এই ব্যক্তি বাইরে চলাফেরা করতেন। এ নিয়ে এলাকাবাসী আতংকিত ছিল। তার দুই ছেলে এখনও ইতালি প্রবাসী বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার থেকে এই ব্যক্তি জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। তারপর গত রোববার তার অবস্থার অবনতি হলে পরিবারের সদস্যরা প্রথমে তাকে স্থানীয় আবেদীন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। তখন ডাক্তাররা তাকে দ্রুত আইসোলেশনে নিয়ে যেতে পরামর্শ দেন।

এ কথা শুনে পরিবারের সদস্যরা তাকে স্থানীয় আরেকটি হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে রোববার রাত সাড়ে ১০টায় তিনি ইউছুফ মেমোরিয়াল হাসপাতালে মারা যান। পরে রাতেই তার লাশ শহরের বাসায় নিয়ে যান।

করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্যরা এ দিন রাতেই ওই ব্যক্তির বাসায় ছুটে যান। পরে প্রশাসন ঘটনাটি জেলা প্রশাসনসহ আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষকে রাতেই জানান। খবর পেয়ে সোমবার সকালে ঢাকা থেকে আইইডিসিআরের কর্মীরা ভৈরবে এসে তার লাশ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যান।

এরপর সোমবার দুপুরে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য তার নামাজে জানাজা শেষে তাকে পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ ঘটনায় ভৈরবের প্রশাসনসহ মানুষের মধ্য আতঙ্ক বিরাজ করছিল। মঙ্গলবার দুপুরে ওই ব্যক্তির করোনাভাইরাস মুক্ত খবর পেয়ে প্রশাসনসহ ভৈরববাসীর মধ্য স্বস্তি ফিরে আসে।

সুত্রঃ যুগান্তর

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন