‘সরকার বুঝতে দেরিতে হলেও পেরেছে’- মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত: মার্চ ২৪, ২০২০ / ০১:২৩পূর্বাহ্ণ
‘সরকার বুঝতে দেরিতে হলেও পেরেছে’- মির্জা ফখরুল

বিলম্বে হলেও সরকার করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাকে সাধুবাদ জানিয়েছে বিএনপি। সোমাবার (২৩ মার্চ) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কর্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ফখরুল বলেন, ‘দেরিতে হলেও আমি মনে করি যে, তারা বুঝতে পেরেছেন। বিলম্বে হলেও সরকার যে কিছু ব্যবস্থা নিচ্ছেন। এখন এটাকে যেন নিবিড়ভাবে পরিচালনা করা হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।’

সরকারের মন্ত্রীদের বিভিন্ন বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, মন্ত্রীরা এমন এমন উক্তি করেছেন যা মানুষের এই আতঙ্কের মধ্যেও একটা উষ্মা ও খেদের সৃষ্টি করেছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী গতকালও বলেছেন, তারা তিন মাস আগে থেকে প্রস্তুত ছিলেন, যার কোনো নজীর আমরা দেখতে পাচ্ছি না।

“সরকার এই পর্যন্ত বলছে ৩৩ জন আক্রান্ত হয়েছে। পরীক্ষা করার জায়গা তো শুধুমাত্র একটা, আইইডিসিআর। সেই জায়গায় সবাই পরীক্ষা করতেও পারছেন না। যার ফলে কতজন ইতিমধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন, কতজন এর দ্বারা সংক্রমিত হয়েছেন সেটার কোনো সঠিক পরিসংখ্যান আমরা পাচ্ছি না।”

বিদেশ থেকে আসা ৬ লাখ মানুষ গ্রামে-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়ায় ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় উদ্বেগ প্রকাশ করে এ ব্যাপারে সরকারের উদাসীনতা ও প্রশাসনের সমন্বয়হীনতার সমালোচনাও করেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, অতি দ্রুততার সঙ্গে সরকার যদি হাসপাতালগুলোতে ক্লিপ করে, প্রত্যেকটি জেলা হাসপাতালগুলোতে টেস্টিং কিট ও সরঞ্জাম দেওয়া হয় তাহলে পরীক্ষা করা যাবে। অন্যদিকে চিকিৎসকদের তাদের প্রয়োজনীয় ও নার্সদের জন্য প্রয়োজনীয় যে উপকরণ দরকার তা দিতে হবে। এবং আমরা মনেকরি হাসপাতালগুলোতে টিম থাকা দরকার। তাদের কাজ হলো করোনা রোগী শনাক্ত করা ও তাদের সেবা দেওয়া।

বিএনপির সব কর্মসূচি বাতিলের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনাদেরকে জানাতে চাই যে, আমাদের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সারাদেশের দলের সকল কর্মসূচি আমরা বাতিল করেছি। কোনো রকমের জনসমাবেশ-সমাবেশ যেন না হয় তার জন্য নেতা-কর্মীদেরকে দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন