বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক দৃঢ় করতে চান কোরিয়ান প্রধানমন্ত্রী

পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোর মাধ্যমে বাংলাদেশ-কোরিয়া সম্পর্ক দৃঢ় করার মাধ্যমে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চান সফররত কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রী লি নাক-ইয়োন। গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের তাৎপর্যপূর্ণ অগ্রগতির প্রশংসা করে কোরিয়ান প্রধানমন্ত্রী তিনটি প্রধান ক্ষেত্রে সহযোগিতার সম্পর্কের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। সেগুলো হলো- জ্বালানি, অবকাঠামো ও তথ্যপ্রযুক্তি।

এ সময় তৈরি পোশাক শিল্প ছাড়াও বাংলাদেশের রপ্তানি বৃদ্ধিতে পণ্যের বৈচিত্র্যকরণের ওপরও জোর দেন তিনি। আজ রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘প্রোমোটিং বিজনেস টাইস টুডে : ব্রিংগিং মিউটুয়াল প্রসপারেটি টুমোরো’ শীর্ষক বাংলাদেশ-কোরিয়া বিজনেস ফোরামে বক্তব্য প্রদানকালে এ কথা বলেন কোরিয়ান প্রধানমন্ত্রী।

ফোরামে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম ও কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যাসোসিয়েশনের (কেআইটিএ) সিইও ও চেয়ারম্যান ইয়ং জু কিম।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানসহ অন্যান্য ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এফবিসিসিআই প্রধান ফাহিম বলেন, ‘বৈদেশিক বিনিয়োগের জন্য এখন দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে অনুকূল শাসন ব্যবস্থা বিরাজ করছে। সর্বোচ্চ পর্যায় থেকেও ব্যবসার ব্যাপারে সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘কোরিয়ান প্রতিষ্ঠান সুপার পেট্রোকেমিক্যাল বাংলাদেশের পেট্রোকেমিক্যাল খাতে ২.৩৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব দিয়েছে। যা দুই দেশের বিনিয়োগ সম্পর্কে ইতিবাচক অবদান রাখবে।’

এফবিসিসিআই প্রধান বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য অংশীদার হিসেবে গত বছরে বাংলাদেশ-কোরিয়ার দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিল প্রায় ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের।’ এ সময় অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ককে দৃঢ় করতে এফবিসিসিআই ও কেআইটিএ- এর মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত