হযরত মুহাম্মদ (সা:) হিন্দুস্থানের যু’দ্ধ বিষয়ে সাহাবাদের কি বলেছিলেন আপনি জানেন কি?

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২০ / ০১:৫১অপরাহ্ণ
হযরত মুহাম্মদ (সা:) হিন্দুস্থানের যু’দ্ধ বিষয়ে সাহাবাদের কি বলেছিলেন আপনি জানেন কি?

গাযওয়াতুল হিন্দ বা হিন্দুস্থানের চূড়ান্ত যু’দ্ধে একদল কালো পতাকাবাহী মু’সলিম সৈন্য(ইয়েমেনীয় বংশোদ্ভূত শাসক) জয়লাভ করবে।

জেরুজালেম মুক্ত করার পরে তারা এই যু’দ্ধে অংশগ্রহণ করবে। যু’দ্ধশেষে বিজয়ীর বেশে ফেরার পথিমধ্যে শাম প্রদেশে ঈসা (আ:) এর সাক্ষাত লাভ করবেন।

গাযওয়াতুল হিন্দের শহীদরা বদর অথবা ওহুদের যু’দ্ধের শহীদদের মত মর্যাদা পাবে।

গাযওয়াতুল হিন্দ,সম্পর্কে বলা হয়েছে এটা হবে কাফির মুশরিকদের সাথে মু’সলমানদের পৃথিবীর ভিতর

বৃহত্তম জিহাদ/যু’দ্ধ।এই যু’দ্ধে হিন্দুস্তানের মোট মু’সলিমদের এক তৃতীয়াংশই শহীদ হবে,আরেক অংশ পা’লিয়ে যাবে আর শেষ অংশ জিহাদ চালিয়ে যাবে।

মু’সলমানদের জয় হবে কিন্তু এটা এতো টাই ভ’য়াবহ যে হয়তো অল্প কিছু সংখ্যক মু’সলিমই বেঁচে থাকবেন বিজয়ের খোশ-আমদেদ করার জন্য।

অন্যান্য বর্ণনায়

রাসুল (সা:) একদিন পূর্ব দিকে তাকিয়ে বড় বড় নিশ্বাস নিচ্ছিলেন এমন সময় এক সাহাবি রাসুল(সা:)

কে জিজ্ঞেস করলেন ইয়া রাসূলুল্লাহ আপনি এমন করছেন কেন।রাসূল (সা:)বললেন আমি পূর্ব দিকে বিজয়ের গন্ধ পাচ্ছি।

সাহাবি জিজ্ঞেস করলেন ইয়া রাসূলুল্লাহ আপনি কিসের বিজয়ের গন্ধ পাচ্ছেন?

রাসূল (সা:)বললেন পূর্ব দিকে মু’সলিম ও মুশরিকদের সাথে যু’দ্ধ শুরু হবে,যু’দ্ধটা হবে অসম।

মু’সলিম সে’নাবা’হিনী থাকবে সংখ্যায় সীমিত কিন্তু মুশরিক সে’নাবিহিনী থাকবে সংখ্যায় অধিক।

হযরত ছাওবান (রাঃ)থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “আমার উম্মতের দুটি দল,

আল্লাহ্ তা‘আলা তাদেরকে জাহান্নাম হতে পরিত্রাণ দান করবেন। একদল যারা হিন্দুস্থানের জিহাদ করবে, আর একদল যারা ঈসা ইব্‌ন মারিয়াম (আঃ)-এর সঙ্গে থাকবে”।

(হাদিসের মান: সহিহ, সুনানে আন-নাসায়ী, হাদিস নং ৩১৭৫)

হযরত আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, “রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আমাদেরকে হিন্দুস্থানের জিহাদের ওয়াদা দিয়েছেন।

আমি তা পেলে তাতে আমার জান মাল উৎসর্গ করব। আর যদি আমি নি’হত হই,

তবে মর্যাদাবান শহীদ বলে গণ্য হব, আর যদি ফিরে আসি, তা হলে আমি হব আযাদ বা জাহান্নাম হতে মুক্ত আবূ হুরায়রা”।

(সুনানে আন-নাসায়ী, হাদিস নং ৩১৭৪)

ঐ যু’দ্ধে মু’সলিমরা এত বেশি মা’রা যাবে যে র’ক্তে মু’সলিমদের পায়ের টাকুনি পর্যন্ত ডুবে যাবে।ঐ যু’দ্ধে মু’সলিমরা তিন ভাগে বিভক্ত থাকবে:

এক ভাগ বিশাল মুশরিক বাহিনি দেখে ভ’য়ে পা’লিয়ে যাবে।আর এক ভাগ সবাই যু’দ্ধে শহিদ হবেন।

শেষ ভাগ আল্লাহর ও’পর ভরসা করে যু’দ্ধ চালিয়ে যাবে এবং শেষ পর্যন্ত জয় লাভ করবেন।

নবীজি মুহাম্মদ (সা:) বলেন এই যু’দ্ধ বদর সমতুল্য (সুবহা’নাল্লাহ) তিনি আরো বলেছেন ঐ সময় মু’সলিমরা যে যেখানেই থাকুক না কেন তারা যেন সেই যু’দ্ধে শরিক হন।

ইবনেনাসায়ী:খন্ড ০১,পৃষ্টা ১৫২
সুনানে আবু দাউদ খন্ড ০৬ পৃষ্টা_৪২

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন