সিঙ্গাপুরের সব মসজিদ ক’রো’না আ’ত’ঙ্কে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে!

প্রকাশিত: মার্চ ১২, ২০২০ / ০৬:৪০অপরাহ্ণ
সিঙ্গাপুরের সব মসজিদ ক’রো’না আ’ত’ঙ্কে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে!

বিশ্বজুড়ে ক’রো’না আ’ত’ঙ্কের মধ্যে এবার বন্ধ করে দেওয়া হল সিঙ্গাপুরের সব মসজিদ। ইসলামিক রিলিজিয়াস কাউন্সিল অব সিঙ্গাপুর (এমইউআইএস) আজ বৃহস্পতিবার এক ঘোষণায় বলেছে ক’রো’নার বিস্তার রোধে দেশটির সব মসজিদ বন্ধ থাকবে।

এমইউআইএস আরও বলেছে যে, ফতোয়া কমিটি এ ব্যাপারে একটি ফতোয়া জা’রি করেছে। সেখানে ইসলামি আইন অনুযায়ী মসজিদ বন্ধের এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, এমনকি ১৩ মার্চ শুক্রবারের জুমার নামাজও বাতিল করা হয়েছে।

এরই মধ্যে দেশটির বেশ কিছু মসজিদ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মসজিদগুলো হচ্ছে-মসজিদে মুত্তাকিন, মসজিদে কাসিম, মসজিদে হাজ্জাহ ফাতিমাহ এবং মসজিদে জামে সুলিয়া। ১৩ মার্চ সকাল থেকে ১৭ মার্চ পর্যন্ত এই ৫ দিন সিঙ্গাপুরের সব মসজিদ পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। এই সময়ে মসজিদগুলো পরিস্কার করে জীবাণু মুক্ত করা হবে।

এমইউআইএস মসজিদ বন্ধের কারণ ব্যাখ্যা করে বলেছে, মুফতি এবং আন্তর্জাতিক ফতোয়া কমিটি জনস্বাস্থ্য ও সুরক্ষার স্বার্থে এই পদক্ষেপের বিষয়ে একমত হয়েছে। তাদের সম্মতিতেই মসজিদ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিবৃতিতে তারা বলেছে, মুসলমানদের উচিত জুমার বদলে তাদের নিয়মিত দুপুরের (জোহর) নামাজ আদায় করা। শুক্রবারের জুমার খুতবা অনলাইনে প্রচার করা হবে।

এছাড়া মসজিদগুলিতে পরবর্তী দুই সপ্তাহের জন্য (১৩ মার্চ থেকে ২৭ মার্চ) পর্যন্ত ধর্মীয় কার্যক্রম, বক্তৃতা, ধর্মীয় ক্লাস এবং মসজিদ ভিত্তিক কিন্ডারগার্টেন সেশন বাতিল করার কথা বলা হয়েছে।

মুসলিম সম্প্রদায়কে সুস্বাস্থ্যের জন্য জীবাণুমুক্ত থাকা এবং সামাজিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। যাতে ক’রো’না’ভা’ই’রাস আরও ছড়িয়ে পড়তে না পারে।

ভ’য়ং’কর এই ভা’ই’রাস থেকে আ’ত্ম’রক্ষায় বহুমুখী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সিঙ্গাপুরের মুসলিমরা। তারা মসজিদভিত্তিক গণসচেতনতার কাজ করছে। এর মধ্যে আছে মসজিদে নিজস্ব জায়নামাজ ব্যবহার ও মাস্ক ব্যবহার এবং মুসাফা এড়িয়ে চলা ইত্যাদি।

সিঙ্গাপুরের প্রায় ৬০ লাখ জনসংখ্যার প্রায় ১৬ ভাগ মুসলিম। এ ছাড়া বিপুলসংখ্যক অভিবাসী মুসলিম রয়েছে সে দেশে। প্রতি শুক্রবার বিপুলসংখ্যক মুসল্লি মসজিদে একত্র হয়।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন