শিশু মুরসালিনের খোঁজ মেলেনি ৭ মাসেও, মায়ের কান্না মুছে দিতে শেয়ার করে সহায়তা করুন

প্রকাশিত: মার্চ ১০, ২০২০ / ১২:৪৩অপরাহ্ণ
শিশু মুরসালিনের খোঁজ মেলেনি ৭ মাসেও, মায়ের কান্না মুছে দিতে শেয়ার করে সহায়তা করুন

সন্তানের ছবি বুকে নিয়ে চোখের জলে সন্তান ফিরে আসার অপেক্ষায় পেরিয়েছে দীর্ঘ ৭টি মাস। ফেরেনি শিশু সন্তানটি। তাই এখনও আশায় বুক বেঁধে আছেন মা। এই বুঝি মুরসালিন এসে মা বলে জড়িয়ে ধরে। এখনও চোখের জলে সন্তান ফেরৎ পাওয়ার আশায় পথ চেয়ে দিন কাটছে নিখোঁজ শিশু মুরসালিনের মা-বাবার। সাত মাস আগে নিজ গ্রাম গোপালগঞ্জ কাশিয়ানী উপজেলার সাজাইল ইউনিয়নের আমডাকুয়া গ্রাম থেকে নিখোঁজ হওয়া শিশু হুসাইন মোঃ মুরসালিনের (৬) খোঁজ মেলেনি আজও।

দিনটি ছিল ২ আগষ্ট ২০১৯, শুক্রবার। বাড়ির পাশের সাজাইল বাজার জামে মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে গিয়ে আর ফিরে আসেনি মুরসালিন। এ ঘটনায় ১৮ আগষ্ট মুরসালিনের বাবা মোঃ বাচ্চু সরদার ৪ জনকে আসামী করে কাশিয়ানী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে আসাদ মুন্সী (৬০), হারুন সরদার (৫৭) এ দু’জনকে গ্রেফতার করা হলেও তারা বর্তমানে জামিনে আছেন।

বাকি দুই অভিযুক্ত রাইতকান্দি গ্রামের নাজির শেখের মেয়ে বেদেনা ও ইউসুফ শেখের ছেলে রাসেল শেখ। এদিকে হারুন সরদার ও আসাদ মুন্সী জামিনে মুক্তি পেয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি প্রদান করছেন বলেও জানান মুরসালিনের বাবা বাচ্চু সরদার। কাশিয়ানী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী জাহাঙ্গীর আলমের ছত্রছায়ায় থেকে এতোবড় অপকর্ম করেও হারুন ও আসাদ পার পেয়ে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন বাচ্চু।

মুরসালিনের মা রুবিনা বেগম বলেন, আমার ছেলে কোথায়, কি অবস্থায় আছে এখনও পর্যন্ত পুলিশ কিছুই বের করতে পারেনি। পুলিশ আরো তৎপর ও আন্তরিক হলে আমার ছেলে এতোদিনে ফেরৎ পেতাম। যে কোনো কিছুর বিনিময়ে আমার সন্তানকে ফেরত চাই। ১১নং সাজাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ারা খানম বলেন, মুরসালিনকে আমরা সবাই চিনি। সে খুবই চঞ্চল প্রকৃতির ছেলে। এ বছর ১ম শ্রেণিতে থাকার কথা ছিল। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি তাকে যেনো দ্রুতই খুঁজে বের করা হয়।

এ বিষয়ে সিআইডির তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ ইফতেখারুল আলম জানান, অক্টোবরে ১২ তারিখে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছি। তদন্তের কাজ অব্যাহত রয়েছে। এ পর্যন্ত এমন কোনো ক্লু পাইনি যা দিয়ে আসামীদের গ্রেফতার করে মুরসালিন নিখোঁজের বিষয়ে জানতে পারবো। প্রশংগত মুরসালিন নিখোঁজের অভিযোগ পাওয়ার পর কাশিয়ানী থানা পুলিশ দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত আসামীদের জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেয়। পরবর্তীতে মামলাটি অধিক তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেয় আদালত।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন