১১ এমপির নাম পাওয়া গেলো ‘পাপিয়ার মোবাইল কললিস্টে’

প্রকাশিত: ফেব্রু ২৮, ২০২০ / ০১:৩৫পূর্বাহ্ণ
১১ এমপির নাম পাওয়া গেলো ‘পাপিয়ার মোবাইল কললিস্টে’

যুব মহিলা লীগ নেত্রী (বহিষ্কৃত) শামীমা নূর পাপিয়ার প্রশ্রয়দাতা ও তার অ’প’কর্মের সহযোগীদের তালিকা হচ্ছে। এদের সঙ্গে পাপিয়ার সম্পর্ক এবং লে’ন’দেনের তথ্যও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তার মোবাইল ফোন থেকে অন্তত ১১জন সংসদ সদস্যের নম্বরে বেশি যোগাযোগের তথ্য মিলেছে।

তাদের ব্যাপারেও তথ্য নিচ্ছেন তদন্তকারীরা। পাপিয়ার অ’প’কর্মের সিন্ডিকেটের কয়েকজনকে শিগগিরই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। সেজন্য সংসদ সদস্যসহ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতার ওপর নজরদারি করা হচ্ছে।

পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে গতকাল বৃহস্পতিবার এসব তথ্য জানা গেছে। অন্যদিকে পাপিয়াসহ আ’সা’মিদের বি’রু’দ্ধে মা’ম’লা তদন্তের জন্য র‌্যাবের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

রাজধানীর হোটেলগুলোতে সুন্দরী তরুণী সরবরাহ, প্রভাবশালীদের ব্লা’ক’মে’ইলিং, তদ’বির বাণিজ্য, অ’বৈ’ধ অ’স্ত্র রাখাসহ নানা অ’ভি’যোগে গত শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকায় শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে গ্রে’প্তা’র করা হয় পাপিয়া ও তাঁর স্বামী সুমনসহ চারজনকে।

পাপিয়া ও তার স্বামীকে আদালতের মাধ্যমে ১৫ দিনের রি’মা’ন্ডে নেয় বিমানবন্দর থানা পুলিশ। পরে মা’ম’লাটি ডিবিতে স্থানান্তর হওয়ায় ডিবি তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। ইতোমধ্যে রি’মা’ন্ডের দু’দিন পার হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যের সূত্র ধরে পাপিয়ার সহযোগী ও প্রশয়দাতাদের নিয়ে কাজ শুরু করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

সূত্রের দাবি, রাজনীতির সূত্র ধরেই ঢাকায় এসে পাপিয়া আওয়ামী লীগের তিন নেত্রীর স্নেহধন্য হয়ে ওঠেন। তাদের মাধ্যমে পরিচিত হন অন্য অনেক নেতার সঙ্গে। এর মধ্যেই হোটেলে যাওয়া-আসা শুরু হয় তার।

জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়া পুলিশকে জানান, যুব মহিলা লীগের তিন নেতাসহ কয়েকজনের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা ছিল। আর তিনি হোটেলে যেতেন মূলত ডিসকোতে যোগ দিতে। ডিসকো করতে করতেই নিজের একটি গ্রুপ তৈরির ইচ্ছা জাগে।

সে জন্য নরসিংদীর কিছু সুন্দরী তরুণীকে ঢাকায় নিয়ে আসেন। ওই সব মেয়েকে নিয়ে অভিজাত হোটেলে নাচ-গানে অংশ নিতেন তিনি। এক চলচ্চিত্র পরিচালকের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর সিনেমার নায়িকা হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। আশ্বাসও মিললেও পরে আর তা হয়ে ওঠেনি।

জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়ার স্বামী পুলিশকে জানান, পাপিয়াকে হোটেলে থাকতে নিষেধ করতেন তিনি। কিন্তু স্ত্রী তার কথা শুনতেন না। আর তারও কিছুই করার ছিল না। উল্টো স্ত্রী যা বলতেন তা-ই তাকে মেনে চলতে হয়েছে।

বিমানবন্দর থানায় দায়ের হওয়া মা’ম’লার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন ইন্সপেক্টর (তদন্ত) কাজী কায়কোবাদ। তিনি বলেন, ‘পাপিয়াসহ চারজনের বি’রু’দ্ধে জাল নোট মা’ম’লার ত’দ’ন্ত করেছি আমরা। উ’দ্ধা’র হওয়া জা’ল নোট সম্পর্কে তাদের কাছে জানতে চাইলে সেগুলো তাদের নয় বলে তারা দাবি করে। মা’ম’লাটি এখন ডিবিতে।’

তদন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পাপিয়ার অ’প’ক’র্মের সিন্ডিকেটের কয়েকজনকে শিগগিরই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এ কারণে পাপিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ থাকা সংসদ সদস্যসহ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতার ওপরও ন’জর’দারি করা হচ্ছে।

পাপিয়ার কললিস্টে ১১জন সংসদ সদস্যের নম্বরে বেশি যোগাযোগের তথ্য পাওয়া গেছে। এদের কার সঙ্গে পাপিয়ার কী ধরনের সম্পর্ক সে ব্যাপারে তথ্য নেওয়া হচ্ছে।

সূত্র জানায়, গ্রে’প্তা’র হওয়ার পরও পাপিয়া বেশ দম্ভ নিয়ে বলেছেন যে তার হাত অনেক উপরে, কিছুই হবে না। পরবর্তীতে র‌্যাবের দ্বিতীয় অভিযান এবং তিন মা’ম’লায় রিমান্ডে আসার পর অনেকটাই চুপসে গেছেন তিনি। এখন বিভিন্ন ব্যক্তির ওপর তিনি অ’প’কর্মের দায় চাপাতে চাইছেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, পাপিয়ার বি’রু’দ্ধে র‌্যাব তিনটি মা’ম’লা করেছে। গত বুধবার রাতে মা’ম’লাগুলো ডিবিতে স্থানান্তর হয়েছে।

ওইসব মামলায় পাপিয়া ১৫ দিনের রি’মা’ন্ডে রয়েছেন। তার সঙ্গে কারা জ’ড়িত, কারা ইন্ধনদাতা, তার অর্থের উৎস কী, বে’পরোয়া হয়ে ওঠার পেছনে শ’ক্তি’র উৎস—সবই তদন্ত করে দেখা হবে। অ’নৈ’তিক বিষয় থাকলে তা-ও তদন্ত করে দেখা হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন