ক’রোনার কবলে এবার কোরিয়া

প্রকাশিত: ফেব্রু ২৪, ২০২০ / ০৬:৪০অপরাহ্ণ
ক’রোনার কবলে এবার কোরিয়া

বিশ্ব ক’রো’না’ভা’ই’রাসের ঝাঁ’কুনিতে, পুরো পৃথিবী জুড়ে লাফিয়ে লাফিয়ে ছড়িয়ে পড়ছে ভ’য়’ঙ্ক’র ক’রোনা ভা’ই’রাস। চীনের উহান থেকে উৎপত্তি এই ভা’ই’রাসের। করোনা শুনলেই আ’তকেই উঠছে মানুষ।

এ মুহূর্তে শুধু চীন নয় এটি বিশ্ব আ’তং’কের নাম। এই ক’রো’না’ভা’ই’রাস এখন পুরো কোরিয়াকে আ’তং’কে ফেলেছে।

কোরিয়া জুড়ে থমথমে অবস্থা। সম্প্রতি কোরিয়ায় একজনের মৃ’ত্যু’র পর নড়েচড়ে বসেছে কোরিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়।

এ মুহূর্তের মধ্যে কোরিয়ায় ক’রো’না’ভা’ই’রা’স আ’ক্রা’ন্তে’র সংখ্যা ১৫৬ জন, দ্রুতগতিতে একজনের থেকে অন্যজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে এ ভা’ই’রাস। বলাবাহুল্য, দক্ষিণ কোরিয়ায় ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে আরও ৫২ জন ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত হয়েছে।

বিকালে, স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, আরও ৪৮ জনের আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার কথা। এ নিয়ে কোরিয়ায় মোট আ’ক্রা’ন্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ২০৪ জনে। কোরিয়ার গণমাধ্যম জানায়,৫২ জনের মধ্যে ৪১জনই দেগু ও খিয়ংবুক এলাকার। আজ সকালে গিম্পুর উরি হাসপাতালেও দুইজন কোরিয়ানকে সনাক্ত করে।

বৃহস্পতিবার একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়। এ জীবাণু মানুষ নিজের শ্বাসের সঙ্গেই নিয়ে চলছে। এটি দ্রুতগতিতে বিস্তার করছে।ধীরে ধীরে ভ’য়’ঙ্ক’র আকার নিয়েছে এই ক’রোনা ভা’ই’রাস।

কোরিয়ার পর্যটন বিভাগ তার দেশের নাগরিকদের ছয়টি দেশে ভ্রমণে স’ত’র্ক’তা জারী করেছে। বিশেষ করে চীন,ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, সিংগাপুর, জাপান,তাইওয়ান।

দিন যত এগোচ্ছে তত যেন লাফিয়ে বাড়ছে এই রোগীর সংখ্যা। উল্লেখ্য, বর্তমানে কোরিয়া একজনসহ মোট মৃ’তে’র সংখ্যা বেড়ে দাড়াল ২২২৩ জন।

বুধবার চীনে ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মৃ’ত্যু হয়েছে উহানের উচ্যাং হাসপাতালের ডিরেক্টরের। সেই মৃ’ত্যু ঘিরে ক্ষো’ভের মুখে পড়েছে চীনা সরকার।

গত সপ্তাহেই উহানে ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত হয়ে ৬ জন চিকিৎসকের মৃ’ত্যু হয়েছে। এর পাশাপাশি চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে জ’ড়িত আর ১,৭১৬ জন কর্মীও এই ভাই’রা’সে আ’ক্রা’ন্ত হয়েছে।

ইতিমধ্যেই এ ভা’ই’রাসে আ’ক্রা’ন্তের সংখ্যা ৭২ হাজারেরও বেশি দাড়িয়েছে। পুরোনো রেকর্ডকেও ছাপিয়ে গেল নয়া রেকর্ড। নতুন করে আ’ক্রা’ন্তের সংখ্যাও বাড়ছে।

ইতিমধ্যেই এই রোগকে ম’হা’মারি বলে চিহ্নিত করেছে বিশ্বস্বাস্থ্যসংস্থা। এরই ধারাবাহিক পর্যায়ে চীনের পার্শ্বীয় দেশ কোরিয়ায় ক’রো’না দিনে দিনে ব্যাপকতা রুপ নিচ্ছে।

দেগু,খিয়ংবুক, গিম্পু এলাকায় আজ সকালে নতুন করে আ’ক্রা’ন্তের খবর আসে গণমাধ্যমে।

ক’রো’না’ভা’ইরাসে উদ্বিগ্ন বাংলাদেশি প্রবাসীরা, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ফেসবুকে সচেতনতামূলক পোস্ট দিচ্ছেন,একইসঙ্গে বাংলাদেশ দূতাবাসের ফেসবুক পেইজে নিয়মিত আপডেট দিচ্ছেন পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশি প্রবাসীদের সচেতন রাখতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কয়েকঘন্টা পরপর রোগীর সংখ্যা, বর্তমানে কি অবস্থা এ সকল পোস্ট দিচ্ছেন ই পি এস বাংলা, ইকেবিসি, ইসো, ব্রাক্ষণবাড়িয়া কমিউনিটিসহ নানা কমিউনিটি।

বাংলাদেশ দূতাবাসের ফেসবুক পেইজেও কয়েকদিন নানা সচেতনতার পোস্ট লক্ষ্য করা যায়। বাংলাদেশি কমিউনিটি ব্যক্তিত্ত্ব রবিউল হোসেন জানান,কোরিয়ার বর্তমান পরিস্থিতি উ’দ্বে’গজনক, তিনি বাংলাদেশি প্রবাসীদের জরুরী প্রয়োজন ব্যতীত পাবলিকপ্লেসে যেতে নিষেধ করেন।

তিনি আরও জানান,পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে ক’রো’না’ভা’ই’রাস ব্যাপকতায় রুপ নেবে। চিকিৎসক মহলের দাবি, আ’ক্রা’ন্তের তুলনায় মৃ’ত্যু’র হার সার্সের সময় অনেক বেশি ছিল। ক’রো’না ভা’ই’রাসের ফলে যে বিপুল সংখ্যক মানুষ আ’ক্রা’ন্ত হচ্ছেন তার তুলনায় মৃ’ত্যু’র হার যথেষ্ঠই কম।

কিন্তু এ ভা’ই’রাস অতি দ্রুত ছড়াচ্ছে। কোরিয়া সরকারের তরফে একাধিক নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয়ের তরফ থেকেও জানানো হয়েছে, সকল নাগরিক যেন স’ত’র্ক’তা সঙ্গে চলাফেরা করেন।

কোরিয়ার বিচার মন্ত্রণালয় অ’বৈধ কোন ভী’তি ছাড়া হাসপাতালে এসে চিকিৎসা নিতে আহ্বান করেছে।

ভিসাবিহীন ব্যক্তিদের দেশে ফেরত পাঠানো হবে না বলে জানান। অন্যদিকে চীনে ক’রো’না’ভা’ই’রাস নিয়ে জাতীয় স্তরে হেল্পলাইন নম্বরও চালু করা হয়েছে।

একইভাবে কোরিয়াতে করোনা ভা’ই’রাসের জন্য জাতীয়ভাবে হেল্প লাইন চালু করা হয়েছে, সবাইকে ১৩৩৯ কল করে সকল বিষয়ে জানাতে আহ্বান করেছে কোরিয়ার স্বাস্থ্য বিভাগ।বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী এই ক’রো’না’ভা’ই’রাসের অফিশিয়াল নাম ‘কোবিড-১৯’। এই আ’ত’ঙ্কের মধ্যে সুখবর শুনিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থা।

দেড় বছরের মধ্যেই এই ভা’ই’রাসের প্রতিষেধক টিকা আবিষ্কার করে ফেলবেন বিজ্ঞানীরা। কিন্তু তাতেও কিছু হচ্ছে না। উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বাড়ছেই। এই উ’দ্বে’গ কোরিয়াসহ সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে।

কোরিয়া নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম সবাইকে স’র্ত’কতার সঙ্গে চলাফেরা তাগিদ দেন, একইসঙ্গে যেকোনো প্রয়োজনে দূতাবাস সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন