যে সম্প্রদায় থেকে দক্ষিণ কোরিয়াতে ছড়িয়ে পড়ছে ক’রোনাভা’ইরাস

প্রকাশিত: ফেব্রু ২২, ২০২০ / ০৭:৫৯অপরাহ্ণ
যে সম্প্রদায় থেকে দক্ষিণ কোরিয়াতে ছড়িয়ে পড়ছে ক’রোনাভা’ইরাস

চীনের পর এবার দক্ষিণ কোরিয়ায় ক’রো’না’ভা’ই’রাসের আ’ত’ঙ্ক প্রকট আকার ধারণ করছে। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় দুটি শহর দেগু এবং চোংডোর একটি ধর্মীয় সম্প্রদায় থেকে ভা’ই’রাসটি ছড়িয়ে পড়ছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

এর জন্য পাশাপাশি ওই দুটি শহরে বসবাসরত শিনচিওঞ্জি নামে ক্ষুদ্র একটি খ্রিষ্টান সম্প্রদায়কে দায়ী করা হচ্ছে।

বিবিসি জানিয়েছে, দেগু এবং চোংডোতে এই ধর্মীয় গোষ্ঠীর কয়েকশ সদস্য ভা’ই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার উপসর্গের কথা জানানোর পরই তাদের অনেকের শরীরেই প্রথম ক’রো’না’ভা’ই’রাস পাওয়া যায়।

নতুন করে ভা’ই’রাস আ’ক্রা’ন্তের যেসব রোগী পাওয়া যাচ্ছে তাদের বেশীরভাগই চোংডো শহরের দেনাম নামের একটি হাসপাতালে রয়েছে। ওই হাসপাতালটিতে এখন পর্যন্ত ১১৪ জনের শরীরে ক’রো’না’ভাইরাস পাওয়া গেছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা বলছেন, আ’ক্রা’ন্তদের অধিকাংশই শিনচিওঞ্জি ধর্মীয় সম্প্রদায়ের অনুসারী।

শনিবার দেশটিতে নতুন করে ২২৯ জনের শরীরে ক’রো’না’ভা’ই’রা’সের উপস্থিতি নিশ্চিত করা হয়েছে।

শুক্রবার সরকার শিনচিওঞ্জি ধর্মীয় গোষ্ঠীর নয় হাজারেরও বেশি সদস্যকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ঘর থেকে বের না হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

জানা যায়, ১৫ দিন আগে চোংডোতে শিনচিওঞ্জি সম্প্রদায়ের প্রতিষ্ঠাতার ভাইয়ের শেষকৃত্যে কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেন।

তারপরই ঐ সম্প্রদায়ের ৫০০ এর বেশি অনুসারী ভাইরাসে আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার নানা উপসর্গের কথা জানায়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দেগু, চোংডো এবং আশপাশের এলাকাগুলোতে বিশেষ ব্যবস্থা জারী করা হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, দেগু দক্ষিণ কোরিয়ার চতুর্থ বৃহত্তম শহর। ২৫ লাখ জনসংখ্যার এই শহরে আ’ত’ঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। গত দুদিন ধরে রাস্তায় মানুষজন বলতে গেলে চোখেই পড়ছে না।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন