গাম্বিয়াকে সহায়তা করতে তহবিল সংগ্রহের সিদ্ধান্ত ওআইসির

প্রকাশিত: ফেব্রু ১২, ২০২০ / ১২:১৩অপরাহ্ণ
গাম্বিয়াকে সহায়তা করতে তহবিল সংগ্রহের সিদ্ধান্ত ওআইসির

সৌদি আরবের জেদ্দায় ওআইসির জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের বৈঠকে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি) রো’হিঙ্গা গণহ’ত্যার ঘটনায় মিয়ানমারের বি’রুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচারিক আ’দালতে মা’মলা করা গাম্বিয়াকে সহায়তা করতে তহবিল সংগ্রহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এপ্রিলে অনুষ্ঠেয় ইসলামিক দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে এ তহবিল সংগ্রহ করা হবে।বৈঠকে গাম্বিয়াকে সব ধরনের সহায়তার জন্য পুনরায় প্রত্যয় ব্যক্ত করে ওআইসির সদস্য রাষ্ট্রগুলো।পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র স’চিব মাসুদ বিন মোমেন।

আজ মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সৌদি আরবে ওআইসির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এপ্রিলে পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হবে নাইজারে এবং সেটির প্রস্তুতির জন্য এ বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

বৈঠকে গত ২৩ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক বিচারিক আ’দালতের অন্তবর্তীকালীন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলা হয়, গাম্বিয়াকে সহায়তার জন্য বাংলাদেশের প্রস্তাবের প্রতি সমর্থন রয়েছে ইসলামি দেশগুলোর।এছাড়া তহবিল সংগ্রহের জন্য ইতোমধ্যে ওআইসি স’চিবালয় একটি অ্যাকাউন্ট খুলেছে, আগ্রহী রাষ্ট্রগুলো এখানে সহায়তার অর্থ জমা দিতে পারবে।

ক্ষমতা হারাচ্ছেন মোদি, হাতছাড়া ৬ রাজ্যঃ এবার হঠাৎ করেই যেন থমকে গেছে বিজেপির জয়রথ।একের পর এক রাজ্য হাতছাড়া হচ্ছে।গত দেড় বছরে ‘বিজেপিমুক্ত’ হয়েছে পাঁচটি রাজ্য।সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে আরো একটি রাজ্য।দিল্লিতেও মুখে হাসি ফোটাতে ব্যর্থ মোদি-শাহ জুটি।

প্রথমদিকে লড়াইয়ে থাকলেও বেলা যতো গড়িয়েছে ক্রমশ পিছিয়ে পড়েছে বিজেপি।শেষপর্যন্ত তাদের হাতে দিল্লির মাত্র সাতটি আসন। অথচ রাজধানীর সাতটি লোকসভা আসনই জিতেছিল তারা। তাহলে কেন এমন পরিস্থিতি? কেনই বা একের পর এক রাজ্য হাতছাড়া হচ্ছে?

এদিকে ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, সবকটি সংস্থার বুথ ফেরত সমীক্ষাতে যা বলা হয়েছিল, সেই ফলই হলো দিল্লির বিধানসভা ভোটে। বিজেপিকে কার্যত ধুয়েমুছে সাফ করে দিয়ে দিল্লি দখল করতে চলেছে আম আদমি পার্টি। মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে হ্যাটট্রিকের পথে অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

আজ সকাল থেকেই ট্রেন্ড বোঝা যাচ্ছিল। শুরুর দিকে বিজেপি প্রায় ২০টি আসনে এগিয়ে ছিল। কিন্তু সেই ব্যবধান কোথাও ৫৫, কোথাও বা ১০৫ ভোট। বেলা বাড়তেই সেই সুতোর ব্যবধান মুছে যায়। সেই আসনগুলোও জিতে নেয় আপ। বেলা সোয়া তিনটে পর্যন্ত কোনো আসনেই জয়ী প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেনি কমিশন। তবে ব্যবধানে স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে দিল্লি ফের আপের।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন