সীমান্তে এক মাসেই ১১ বাংলাদেশিকে হ’ত্যা: বিজিবি

প্রকাশিত: ফেব্রু ৫, ২০২০ / ০৮:৪৪অপরাহ্ণ
সীমান্তে এক মাসেই ১১ বাংলাদেশিকে হ’ত্যা: বিজিবি

গত প্রায় এক মাসে দেশের সীমান্ত এলাকায় ১১ জন বাংলাদেশি নাগরিককে হ’ত্যা করা হয়েছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) পরিচালক (পরিকল্পনা) লে. কর্নেল সৈয়দ আশিকুর রহমান এ তথ্য জানান।

করোনা ভা’ই’রা’স বিষয়ে সীমান্তে কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন হলে বিজিবি অন্যান্য সংস্থাকে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত রয়েছে বলেও তিনি জানান।

বুধবার বিজিবি সদর দফতরের নিজ কার্যালয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সীমান্ত হ’ত্যা’কা’ণ্ড বলতে সাধারণভাবে বোঝা যায় যে, সীমান্তের সন্নিকটে, তা কিন্তু না। অনেক সময় দেখা যায় ভারতের সীমান্তের ভেতরে ৫ থেকে ১৫ কিলোমিটারের ভেতরও হয়।

হয়তো দেখা যায়, কোনো নিরীহ মানুষ ভারতের সীমান্তে ঢুকে যাচ্ছে, হয়তো গরু আনার জন্য গেছে, তখনও হ’ত্যা’কা’ণ্ডের ঘটনা ঘটে। পরে যখন আমাদের ওপাশ থেকে মৃ’ত’দে’হ হস্তান্তর করা হয়, তখনই আমরা জানতে পারি।

বিজিবি পরিচালক লে. কর্নেল সৈয়দ আশিকুর রহমান বলেন, ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসফ ও বাংলাদেশি সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির মধ্যে এ বিষয়ে তথ্য আদান-প্রদান হচ্ছে। মহাপরিচালক পর্যায়ে যে সম্মেলন হয়েছে, সেখানেও সীমান্ত হ’ত্যা নিয়ে কথা হয়েছে। আমরা আবারও আলাপ আলোচনা করছি।

তিনি বলেন, সীমান্তে অনেক চো’রা’কা’র’বারি চিহ্নিত হয়েছে। অনেকে এখনও চিহ্নিত হয়নি। তবে সীমান্তে যারাই এ ধরনের কাজের সঙ্গে জড়িত আছে, তাদের আমরা নজরদারিতে রেখেছি। তারা যখনই কোনো কিছু পাচারের চেষ্টা করছে, তখনই আমরা তাদের গ্রে’ফ’তা’র করছি।

বিজিবি পরিচালক বলেন, সীমান্তে হ’ত্যা’কা’ণ্ডের ঘটনায় আমরা নিয়মিত প্রতিবাদ জানিয়ে আসছি। ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে চিঠি দিয়ে প্রতিবাদ জানানো হয়। এছাড়া আমরা আমাদের সীমান্ত এলাকার মানুষদের সচেতন করছি, যাতে ভুল করে বা অন্য কোনো কারণে তারা যেন সীমান্ত এলাকা অতিক্রম না করে।

সীমান্ত এলাকায় যেসব স্প’র্শ’কাতর জায়গা রয়েছে, সেসব জায়গা চিহ্নিত করে আমরা জনবল বৃদ্ধি করেছি। স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছি। সমস্যা সমাধানে কূটনৈতিক উপায়েও কাজ চলছে।

তিনি জানান, বিজিবি গত জানুয়ারিতে দেশের সীমান্ত এলাকাসহ অন্য স্থানে অ’ভি’যা’ন চালিয়ে ৯৭ কোটি ১৮ লাখ তিন হাজার টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকারের চোরাচালান ও মা’দ’ক’দ্রব্য জব্দ করেছে।

ই’য়া’বা’সহ বিভিন্ন ধরনের মা’দ’ক পা’চা’র ও অন্যান্য চোরাচালানে জ’ড়িত থাকার অভিযোগে ২৭২ জন চো’রা’চা’লানিকে এবং অ’বৈ’ধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের দায়ে ৩৮ জন বাংলাদেশি নাগরিক ও ২ জন ভারতীয় নাগরিককে আ’ট’ক করা হয়েছে।

লে. কর্নেল সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, বিজিবির মা’দ’ক’বি’রো’ধী অ’ভি’যানে জ’ব্দ’কৃত মা’দ’কের মধ্যে রয়েছে সাত লাখ ২৩ হাজার ৬৮৫ পিস ই’য়া’বা ট্যাবলেট, ৪০ হাজার ৭৪২ বোতল ফে’ন’সিডিল, ১১ হাজার ৭৯২ বোতল বিদেশি ম’দ, ২৯৮ লিটার বাংলা ম’দ, ৫৪৯ ক্যান বি’য়ার,

৭৬২ কেজি গাঁ’জা, ৬৬৫ গ্রাম হে’রো’ইন, চার হাজার চারটি ইন’জে’কশন এবং দুই হাজার ৪৩১টি সেনেগ্রা ট্যাবলেট। জ’ব্দ’কৃত অন্যান্য চো’রা’চালান দ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ১৪ কেজি ৪৮২ গ্রাম সোনা, পাঁচ হাজার ৮২৮টি ইমিটেশন গহনা, ৩৩ হাজার কসমেটিক সামগ্রী,

১৫০০টি শাড়ি, ২৭ হাজার শার্ট ও থ্রিপিস, কাঠ, চা পাতা, পাথরের মূর্তি, ২১টি ট্রাক, ছয়টি পিকআপ, একটি প্রাইভেটকার, ১১টি অটোরিকশা। এছাড়া দুটি পি’স্ত’ল, চারটি ব’ন্দু’ক, দুটি ম্যাগজিন, ১০ রাউন্ড গু’লি এবং ৫৪টি মোটরসাইকেল।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন