ভারতীয় মহিষের আ’ঘাতে বাংলাদেশি নি’হ’ত, আহত দুই বিএসএফ

প্রকাশিত: ফেব্রু ২, ২০২০ / ০৯:১৬অপরাহ্ণ
ভারতীয় মহিষের আ’ঘাতে বাংলাদেশি নি’হ’ত, আহত দুই বিএসএফ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় ভারতীয় বন্য মহিষের আ’ক্র’ম’ণে সাফিয়া খাতুন নামের এক বাংলাদেশি নারী নি’হ’ত হয়েছেন। এ ঘটনায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ’এর দুই সদস্যসহ আ’হ’ত হয়েছে আরও আটজন। গ্রামবাসী মহিষটিকে আ’ট’ক করে জ’বা’ই করে হ’ত্যা করে

রবিবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের গৌরাঙ্গলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নি’হ’ত সাফিয়া গৌড়াঙ্গলা গ্রামের ভূঁইয়া বাড়ির মকবুল হোসেনের স্ত্রী।এ ঘটনায় আ’হ’ত আট বাংলাদেশির মধ্যে সন্তোষ দাস নামের একজনকে কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার সকালে গৌরাঙ্গলা গ্রামের ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহিজলা জেলার গভীর জঙ্গল থেকে একটি মহিষ ভারতীয় বিএসএফ’এর দুই সদস্যকে আ’হ’ত করে বাংলাদেশের লোকালয়ে প্রবেশ করে।

এ সময় মহিষটি সামনে যাকে পায় তাকেই আ’ঘা’ত করে আ’হ’ত করতে থাকে। এরই এক পর্যায়ে সীমান্ত থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে ভুঁইয়া বাড়ির সাফিয়া খাতুনকে আ’ঘা’ত করে গুরুতর আহত করে। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃ’ত ঘোষণা করেন।

পরে গ্রামবাসী সীমান্ত এলাকা থেকে মহিষটিকে আ’হ’ত অবস্থায় আ’ট’ক করে জ’বা’ই করে হ’ত্যা করে। এসময় বিজিবি ও বিএসএফ’এর সমঝোতায় মহিষটিকে বাংলাদেশের প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

নি’হ’তের ছেলে মো. মোস্তফা জানান, হঠাৎ একটি বন্য মহিষ বাড়িতে ঢুকে তার মা সাফিয়া খাতুনকে শিং দিয়ে আ’ঘা’ত করে। পরে মাকে উ’দ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেন তিনি।

স্থানীয় বায়েক ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আল মামুন ভূঁইয়া জানান, “আমার ইউনিয়নটির সঙ্গে ভারতীয় সীমান্ত রয়েছে। সীমান্তের অপর পাশে ত্রিপুরা সিপাহিজলা জেলায় গভীর জ’ঙ্গ’ল রয়েছে। জঙ্গল থেকে বন্য মহিষটি বাংলাদেশে এসে অন্তত আটজনকে আ’হ’ত করে।”

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন জানান, “খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে বিজিবির সহযোগীতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি।”

বিএসএফ’এর বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, “আমরা জানতে পেরেছি দুই বিএসএফ সদস্য আ’হ’ত হয়েছেন। এছাড়া সীমান্তের এপাশে আরও কয়েকজন গ্রামবাসী আ’হ’ত হয়েছে। বিএসএফ এবং বিজিবির মধ্যে আলোচনা করে জ’বা’ইকৃত মহিষটি নি’হ’তের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।”

কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ-উল আলম জানান, মহিষটিকে হ’ত্যা করার আগে অ’জ্ঞা’ন করার জন্য অ’স্ত্র খোঁজা হচ্ছিল। কিন্তু কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোথাও অ’জ্ঞা’ন করার অ’স্ত্র পাওয়া যায়নি। তাই মহিষটিকে গ্রামবাসী আ’হ’ত করে জ’বা’ই করে হ’ত্যা করে।’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন