অনেককে আঙুলের ছাপ নিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে: আমীর খসরু

প্রকাশিত: ফেব্রু ১, ২০২০ / ০৭:৫৯অপরাহ্ণ
অনেককে আঙুলের ছাপ নিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে: আমীর খসরু

দুই সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আঙুলের ছাপ নেওয়ার পর অনেককে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এরপর হয়তো আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বাটন টিপে দিচ্ছে, না হয় দলের অন্য কেউ নিজেদের প্রতীকে ভোট দিয়ে দিচ্ছে।

শনিবার বিকালে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) অভিযোগ দেয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে এমন মন্তব্য করেন আমীর খসরু। এর আগে তার নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে দেখা করে বিভিন্ন অভিযোগ দেয়।

তিনি বলেন, ‘ভোটাররা বাইরে এসে কিন্তু বলেছে। আমার কাছ থেকে আঙুলের ছাপ নিয়ে আমাকে বের করে দেওয়া হয়েছে। বাকিটা (ভোট) তারা দিয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে নির্বাচন বিধি ভঙ্গ করেছেন বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, নির্বাচন চলাকালীন সকালের দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন মেয়র প্রার্থীকে পাশে নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন নৌকায় ভোট দেওয়ার জন্য; ওনার প্রার্থীর পক্ষে, ওনার দলের পক্ষে-প্রার্থীকে পাশে রেখে দেশের প্রধানমন্ত্রী যেটা করেছেন, এটা নির্বাচন বিধি শুধু ভঙ্গ নয়; এটা দেশে একটা রাজনীতির জন্য খারাপ উদাহরণ সৃষ্টি হয়েছে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, দেশের সর্বোচ্চ জায়গা থেকে নির্বাচনকে প্রভাবিত যদি এইভাবে করা হয় এরপরতো আর কিছু থাকে না। ক্যান্ডিডেটকে কাছে নিয়ে তাদের ভোট চায় ও বক্তব্য দেয়। এরপরতো নির্বাচন কমিশন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে মেসেজ পাচ্ছে তাদের তো আর কিছু করার থাকে না। দেশের সর্বোচ্চ জায়গা থেকে নির্বাচনকে যদি এভাবে প্রভাবিত করা হয় লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাকে না।

কেন্দ্র থেকে নারী এজেন্ট বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ জানিয়ে তিনি বলেন, ধর্ষণের ভয় দেখিয়ে ১২ জন নারী এজেন্টকে বের করে দিয়েছে। পারতপক্ষে এজেন্ট তো ঢুকতেই পারেনি। যারা ঢুকেছে তাদের মারধর করে বের করে দিয়েছে। সাংবাদিকেরাও দেখেছে তাদের কীভাবে অসম্মান করা হয়েছে। কীভাবে তাদের অপদস্থ করা হয়েছে। ছবি তুলতে গেলে সাংবাদিকের মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। মারধর করেছে। এমনকি অনেক জায়গায় সাংবাদিকদের একসেস (ভোট কেন্দ্রে প্রবেশের অনুমতি) দেওয়া হয়নি।

আমীর খসরু সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপনারা জানেন আমরা ইভিএম নিয়ে অনেক কথা বলেছি। ইভিএম নিয়ে বিতর্ক এমন জায়গায় এসেছে যে, জনগণ ভোটও দিতে যাচ্ছে না। কারণ পুরো নির্বাচন ব্যবস্থার ওপর অনাস্থা সৃষ্টি করার জন্য ইভিএমের অনেক বড় ভূমিকা সেটা আজ প্রমাণিতও হয়েছে।’

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর পরেই সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। ভোটারদের মনে তারা আস্থা সৃষ্টি করতে পারেনি। এর জন্য কেন্দ্রে ভোটার কম ছিল।

সুত্রঃ যুগান্তর

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন