আমাকে বাংলাদেশিরা কু’ত্তার বাচ্চা বলে : মোদি

প্রকাশিত: জানু ২৭, ২০২০ / ১১:০৫পূর্বাহ্ণ
আমাকে বাংলাদেশিরা কু’ত্তার বাচ্চা বলে : মোদি

নতুন বছরে ভারতের বিএসএফ ২৩ বাংলাদেশি কে হ’ত্যা করেছে। শুধু তাই নয় প্রতি বছর এমন টা হচ্ছে কিন্তু এই বিষয়ে কোন মাথা ব্যা’থা নেই স’রকারের।

এই বছরের প্রথমে এক মাস না হতে অধিক বাংলাদেশি কে হ’ত্যা করেছে, মোদির পা’লিত কুকুর বিএসএফ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচুর সমালোচনা হচ্ছে ভারতে, এদিকে নরেন্দ্র মোদি এক সংবাদ সম্মেলন করেন।

তিনি বলেন, আমার দেশের বর্ডা গার্ড ইদানীং বাংলাদেশি কে নি’র্দোষ ভাবে হ’ত্যা করছে, এটি কখনো কাম্য নয়। আমিও এটা মে’নে নিবো না, আমার বিএসএফের জন্য বাংলাদেশি সাধারণ জনগণ আমাকে কু’কুরের বাচ্চা বলে।

তাই আমি আমার দেশের প্রতি জন বর্ডার গার্ডের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, তারা যেন এমন কাজ না করে। লিখাঃ কলকাতার ফেসবুক গ্রুপ থেকে সংগ্রহ।

এদিকে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ), জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) ও জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধনের (এনপিআর) পক্ষে সাফাই গেয়ে কংগ্রেসকে কটাক্ষ করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেইসঙ্গে সোমবার বিজেপির নব-নির্বাচিত সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডার অভিষেক মঞ্চে নাম উল্লেখ না করে গান্ধী পরিবারের সমালোচনা করতেও পিছপা হননি তিনি।

মোদি বলেন, যে আদর্শ নিয়ে চলি, তাতেই অনেকের আপত্তি। ভুল করছি বলে নয়, দেশের জনতার আশীর্বাদ পাচ্ছি বলে। ভোটে যাদের প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে, যাদের কথা দেশ মানতে রাজি নয়, তাদের হাতে খুব কম হাতিয়ার বাকি আছে। তার মধ্যে একটি হল বিভ্রান্তি ও মিথ্যা ছড়ানো।

মোদির অভিযোগ, ‘(আইনের সমর্থনে) যে সভা হচ্ছে, হাজার-হাজার, লক্ষ লোক আসছেন, তার প্রচার হচ্ছে না। এই খেলা চলবে, আমরাও এগোব।’

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের জবাবে কংগ্রেসের এক মুখপাত্র বলেন, নিজের দলকে চাঙ্গা করতে প্রধানমন্ত্রী কী বলবেন, সেটা তার বিষয়। আর মেরুকরণের তাস খেলে বিরোধীদের ঘাড়ে দায় চাপানোটাও তার পুরনো অভ্যাস।

এর আগে বিজেপির নেতারা, কংগ্রেসের পরিবারতন্ত্র বনাম বিজেপির অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্র— এই মর্মে কংগ্রেসের সমালোচনা করেন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি হিসেবে অমিত শাহের মেয়াদ শেষ হয়েছিল। তবে বিভিন্ন কারণে কাজ চালিয়ে যেতে বলা হয়েছিল তাকে। সবশেষ তিনি সভাপতিপদ ছেড়ে জেপি নাড্ডাকে দিলেন।

বর্তমানে সিএএ, এনআরসি ইস্যুতে ভারতের জাতীয় রাজনীতিতে এখন কিছুটা ব্যাকফুটে বিজেপি। বিজেপির বিরুদ্ধে বিভাজনের রাজনীতির অভিযোগ তুলে সরব একাধিক রাজনৈতিক দল।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন