ই’রানের ‘ক্ষে’পণা’স্ত্র শহর’ পাহাড়ের গভীরে

প্রকাশিত: জানু ২২, ২০২০ / ১০:৪৫পূর্বাহ্ণ
ই’রানের ‘ক্ষে’পণা’স্ত্র শহর’ পাহাড়ের গভীরে

মধ্যপ্রাচ্যের সবচেয়ে শ’ক্তিশালী ক্ষে’পণা’স্ত্র ফোর্সের মালিক ই’রান। যু’ক্তরাষ্ট্র ও ই’সরায়েলের গো’য়েন্দারা কিছুদিন আগে এ ঘোষণা দিয়েছে। বিশাল এই ক্ষে’পণা’স্ত্র ভান্ডার কোথায় লু’কিয়ে রেখেছে ই’রান? অনেকের এই কৌ’তূহল দূর করেছে ই’রানি কর্তৃপক্ষই।

ই’রানের বি’প্লবী গার্ড বাহিনীর (আইআরজিসি) ঘনিষ্ঠ সংবাদমাধ্যম তাসনিম নিউজ এজেন্সি কিছুদিন আগে কয়েকটি গো’পন ছবি পোস্ট করে। ই’রানের ক্ষে’পণাস্ত্র ও রকে’টের ভান্ডার দেখাতে এসব ছবি প্রকাশ করা হয়। এছাড়া ইরানের কয়েকটি চ্যানেল মাটির নিচে ‘ক্ষে’পণা’স্ত্র শহরের’ ভিডিও প্রকাশ করেছে। এসব ভিডিও দেখে শিউরে উঠবে যে কেউ।

বিভিন্ন ভিডিওতে দেখা যায়, মাটির নিচে টানেলের মধ্যে সাজিয়ে রাখা হয়েছে সারি সারি ক্ষে’পণাস্ত্র। এগুলো বিভিন্ন মডেলের, বিভিন্ন পাল্লার। মাটির নিচে ওই ক্ষে’পণা’স্ত্র শহরের ব্যবস্থাপনার জন্যও নিয়োজিত রয়েছে সা’মরিকবা’হিনীর স’দস্যরা।

যু’ক্তরাষ্ট্রের অর্থায়নে পরিচালিত সংবাদমাধ্যম রেডিও ফ্রি ইউরোপের ইরানি শাখা রেডিও ফার্দা কয়েকদিন আগে জানায়, মাটির নিচে ই’রানের ক্ষে’পণা’স্ত্র নগরীতে হাজার হাজার ক্ষে’পণা’স্ত্র ও র’কেট মজুদ রয়েছে। হা’মলার জন্য এগুলো সবসময় প্রস্তুত রাখা হয়। তবে ক্ষে’পণা’স্ত্র শহরের সত্যিকার অবস্থান কোথায় তা জানা সম্ভব হয়নি।

ধারণা করা হয়, মাটির নিচে ই’রানের মোট ৪টি ক্ষে’পণাস্ত্র শহর রয়েছে। ই’রানের ক’র্মকর্তারা জানান, পাঁচ স্তরবিশিষ্ট কংক্রিটের নিরাপত্তা ব্যবস্থার ভেতর এসব ক্ষে’পণা’স্ত্র শহরের অবস্থান। বিভিন্ন পর্বতের ১ হাজার ৬৪০ ফুট নিচে ক্ষে’পণাস্ত্র’ ভান্ডারগুলো তৈরি করা হয়েছে। এগুলো ছ’ড়িয়ে-ছি’টিয়ে আছে দেশের বিভিন্ন জায়গায়।

গত ৬ বছরের চেষ্টায় মাটির নিচে ক্ষে’পণা’স্ত্র শহর তৈরি করেছে ই’রানের বি’প্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি)। শ’ত্রুরা যেন কোনোভাবেই ধ্বং’স করতে না পারে সেজন্যই মূলত পর্বতের নিচে এসব ক্ষে’পণা’স্ত্র শহর তৈরি করা হয়েছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন