সমালোচকদের যে দাঁতভাঙ্গা জবাব দিলেন তামিম ইকবাল

‘ওরা সমালোচনা করছে তো, করতে থাকুক’−শনিবার বিকালে লন্ডন ছাড়ার সময় হোটেলের লবিতে শীর্ষস্থানীয় অনলাইন পত্রিকা এ কথাগুলো বলছিলেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। বিশ্বকাপ শুরুর আগে বৈশ্বিক এই টুর্নামেন্ট নিয়ে সবচেয়ে বেশি রোমাঞ্চিত ছিলেন তামিম। গত কয়েক বছর রানের বন্যা বইয়ে দিয়ে প্রস্তুতিটাও নিয়েছিলেন দারুণভাবে। সবার

আশা ছিল ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপটা হবে তামিমের। কিন্তু ইংল্যান্ডে এসেই যেন খেই হারিয়ে ফেললেন। টুর্নামেন্টের প্রতিটি ম্যাচে সময় নিয়ে ব্যাটিং করেছেন। একটি ম্যাচ বাদে বাকি ম্যাচগুলোতে ছিলেন নিজের ছায়া হয়ে। ২০০৭, ২০১১ ও ২০১৫ সালের তিনটি বিশ্বকাপের অভিজ্ঞতা নিয়ে ইংল্যান্ডে এলেও সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি নিজেকে। অথচ অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে সমর্থকদের প্রত্যাশা ছিল আকাশচুম্বী। কিন্তু প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় তামিমের দিকে ধেয়ে এসেছে সমালোচনার তীক্ষ্ণ বাণ। সেসব নিজ চোখে দেখছেন এবং শুনছেনও।

কোনোভাবেই এসব সমালোচনা থেকে চোখ-কান সরিয়ে রাখতে পারছেন না দেশসেরা এই ওপেনার। পরিস্থিতি এতই ভয়াবহ হয়ে দাঁড়িয়েছে তামিম তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টও ডিঅ্যাক্টিভেট করতে বাধ্য হয়েছেন। শনিবার সন্ধ্যায় টিম হোটেল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পথে তামিমকে আটকানো হলো। কয়েকটা মিনিট সময় চাইতেই বললেন, কী হবে বলে? তারপর জানতে চাওয়া হলো এই যে সমালোচিত হচ্ছেন, এ ব্যাপারে তো আপনার কিছু বলা উচিত। তামিমের পাল্টা জবাব, ‘একটু দূরে থাকি না…। কী হবে। ওরা সমালোচনা করছে তো, করতে থাকুক।

আমি সেসবে আর কান দিতে চাই না।’ ২০১৫ সালে একই রকমের সমালোচনার শিকার হয়েছিলেন। এরপর থেকে ব্যাট হাতে দিয়েছেন তার জবাব। তারপর দুই বিশ্বকাপের মাঝে ৫২ ম্যাচে ২ হাজার ৫১১ রান এসেছে তার ব্যাট থেকে। অথচ বিশ্বকাপের মতো আসরে তামিমের রান মাত্র ২৩৫। সাকিব সমালোচনা সহ্য করে এগিয়ে যেতে পারেন। অন্যদিকে তামিম সমালোচনায় ভেঙে পড়েন। এমন পরিস্থিতি মেনেই তাকে বলা হলো, বিশ্বকাপের আগে কঠোর পরিশ্রম করেছেন, মাঠেও চেষ্টার কমতি ছিল না, সেসব তো জানানো উচিত?

তামিমের উত্তর, ‘পরিশ্রম যে কতটা করেছি, সেসব তো কাছ থেকেই দেখেছেন। কিন্তু হয়নি যখন এতোকিছু বলে লাভ কী? এই বিশ্বকাপ আমার ছিল না।’ বলেই কিছুক্ষণ চুপ করে রইলেন। হয়তো আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে সময় নিলেন। যাওয়ার আগে বলে গেলেন, ‘এটা নতুন শুরু।’ হয়তো তাই! ২০২৩ সালে তামিম নিজের শেষ বিশ্বকাপ হয়তো নিজের মতো করেই সাজাবেন। নিজের চতুর্থ বিশ্বকাপের শোধ ভারতের মাটিতেই নেবেন। তামিম ভক্তরা আছেন সেই আশাতেই!

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত