যে কারনে ইতিহাসের সর্বোচ্চ দু’শ্চিন্তায় ই’সরায়েল

প্রকাশিত: জানু ১৪, ২০২০ / ১১:১১পূর্বাহ্ণ
যে কারনে ইতিহাসের সর্বোচ্চ দু’শ্চিন্তায় ই’সরায়েল

ই’রাকে অবস্থিত মা’র্কিন ঘাঁ’টিতে ই’রান সফলতার সঙ্গে হা’মলা চা’লানোর পর থেকে দু’শ্চিন্তায় আছে ই’সরায়েল। ই’সরায়েলের সা’মরিক গো’য়েন্দাদের ওয়েবসাইট দেবকাফাইল এটাকে ইতিহাসের সর্বোচ্চ দু’শ্চিন্তা বলে উল্লেখ করেছে।

দেবকাফাইলের বরাত দিয়ে ই’রানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম প্রেসটিভি জানায়, মা’র্কিন ঘাঁ’টিতে ই’রানি হা’মলার পর থেকে দু’শ্চিন্তামুক্ত হতে পারছে না ই’সরায়েল। দ’খলকৃত এলাকাগুলোর ও’পর নিয়ন্ত্রণ হা’রানোর ভ’য়েও আছে তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষে’পণাস্ত্র প্র’তিরক্ষা ব্যবস্থা ভেদ করে ই’রাকে অবস্থিত মা’র্কিন ঘাঁ’টিতে সফলভাবে ২২টি ক্ষে’পণাস্ত্র হা’মলা চা’লিয়েছে ই’রান। বুধবার (৮ জানুয়ারি) ভোররাতে নি’র্ভুলভাবে হা’মলা চালানোর পর থেকে প্রশংসায় ভাসছে দেশটি।

এ কারণে চূড়ান্ত দু’শ্চিন্তায় রয়েছে ই’সরায়েল। তাদের ক্ষে’পণাস্ত্র প্র’তিরক্ষা ব্যবস্থাও যু’ক্তরাষ্ট্রের ম’ডেল অনুসরণ করেই তৈরি করা।

ফলে ই’রান সেগুলো ভেদ করে সহজে হা’মলা চা’লাতে পারবে। এটি নিয়ে এখন আর কোনো স’ন্দেহ নেই।

এমনকি ফি’লিস্তিনের ইসলামিক জি’হাদ, লেবাননের হি’জবুল্লাহ, ইয়েমেনের হু’থিসহ আশেপাশের দেশগুলোতে ই’রান সমর্থিত

সংগঠনগুলোর কাছে প্রচুর ই’রানি ক্ষে’পণাস্ত্র রয়েছে বলে ধারণা করা হয়। ই’রানসহ ওই সংগঠনগুলো ই’সরায়েলের ও’পর একসঙ্গে হা’মলা চালালে ছিন্ন-ভিন্ন হয়ে যাবে তেল আবিব। শুধু তাই নয়, এখন পর্যন্ত যেসব জায়গা দ’খল করেছে সেগুলো ছাড়তেও বা’ধ্য হবে তারা।

এ সম্পর্কে ই’সরায়েলের সা’মরিক গো’য়েন্দাদের ওয়েবসাইট দেবকাফাইল লিখেছে, ই’রানের ক্ষে’পণাস্ত্রের বি’রুদ্ধে মা’র্কিন প্র’তিরক্ষা ব্যবস্থা কিছুই করতে পারেনি। আ’মেরিকান ম’ডেলে তৈরি ই’সরায়েলের প্র’তিরক্ষা ব্যবস্থাও একই অবস্থানে রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ৩ জানুয়ারি (শুক্রবার) ভোররাতে ই’রাকে যু’ক্তরাষ্ট্রের বি’মান হা’মলায় নি’হত হন ই’রানের শীর্ষ সা’মরিক কর্মকর্তা জে’নারেল কাসেম সো’লাইমানি। তিনি ই’রানের বি’প্লবী গার্ড বাহিনীর (আ’ইআরজিসি) এলিট শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান ছিলেন।

সো’লাইমানি নি’হত হওয়ার পর থেকে যু’ক্তরাষ্ট্র ও ই’রানের মধ্যে সর্বোচ্চ উ’ত্তেজনা বিরাজ করছে। বুধবার (৮ জানুয়ারি)

ভোররাতে সোলাইমানি হ’ত্যার প্র’তিশোধ হিসেবে ই’রাকে অবস্থিত মা’র্কিন ঘাঁ’টিতে হা’মলা চালায় তেহরান। এরপর ধারণা করা হচ্ছিল,

দেশটির বি’রুদ্ধে কঠিন কোনো পদক্ষেপই হয়তো নেবেন ট্রা’ম্প। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। মা’র্কিন প্রে’সিডেন্ট ই’রানকে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন