ইভিএম নীরবে-নিঃশব্দে ভোট চু’রির প্রকল্প: বিএনপি

প্রকাশিত: জানু ৬, ২০২০ / ০৮:৩৯অপরাহ্ণ
ইভিএম নীরবে-নিঃশব্দে ভোট চু’রির প্রকল্প: বিএনপি

‘স্বয়ংক্রিয়ভাবে নীরবে-নিঃশব্দে ভোট চু’রি’র প্রকল্প হলো ইভিএম। পৃথিবীর ২০০ দেশের মধ্যে মাত্র চারটি দেশে ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে। এই চারটি দেশের সরকার এবং নির্বাচন কমিশন কোনোটাই বি’ত’র্কিত নয়।’

আজ সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে বিকেলে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইভিএম নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করে বিএনপির প্রতিনিধি দল। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

আমীর খসরু বলেন, ২০১৪ সালে ভোটারবিহীন, প্রার্থীবিহীন একটা নির্বাচন করে সরকার ক্ষ’মতা দ’খল করেছে। ২০১৮ সালে ২৯ ডিসেম্বর মধ্যরাতে ব্যালট বাক্স ভর্তি করে সরকার আবারও ক্ষ’মতায় এসেছে। এখন আবার এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ক্ষ’মতায় থাকতে চাচ্ছে। এখন ক্ষ’মতা দখলের একটি নতুন প্রক্রিয়া দেখতে পাচ্ছি সেটি হলো ইভিএম।

তিনি বলেন, ইভিএম এর মাধ্যমে ভোটচু’রি’র যে প্রক্রিয়ায় সেটা হলো একেবারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নীরবে নিঃশব্দে ভোটচু’রি’র। একটি প্রকল্প ছাড়া আর কিছুই না। নির্বাচনের ফলাফল কি হবে সেটা নির্ভর করবে ইভিএম এর প্রোগ্রাম এর উপর। জনগণ যে ভোট দেবে সে ভোটটা কাকে দিবে তার পেপার ট্রেল নাই।

ট্রেল না থাকার কারণে ইভিএমের টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য জামিলুর রেজা চৌধুরী এই প্রকল্পে সই করেননি। ফলে সেখানে ভেরিফাই বা পরীক্ষা করার কোন সুযোগ নাই। তারপরও নির্বাচন কমিশন রহস্য’জ’নক কারণে ইভিএমে গেছে।

তিনি বলেন, জনগণ সারা দিন ভোট দেবে, কিন্তু তাতে কোনো লাভ হবে না। কারণ ইভিএম এর প্রোগ্রামে সেট করা আছে সেভাবেই ফলাফল আসবে।

আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশের অভি’যা’ন, ভয়ভীতি সৃষ্টি, এজেন্টদের ভয়ভীতি প্রদর্শন বড় সমস্যা, তাদের বিরত রাখতে আশ্বাস দিয়েছে কমিশন। কমিশন বলেছে এগুলো হবে না। নেতাকর্মীদের যে গ্রেপ্তার হয় তারা আশ্বাস দিয়েছেন অপরাধ দৃশ্যমান না হলে বা মার্ডার না হলে গ্রে’প্তা’র বন্ধ থাকবে।

এ সময় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বিএনপি’র চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা বিজন কান্তি সরকার ও বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার নুরুল হুদার নেতৃত্বে বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার কবিতা খানম ও রফিকুল ইসলাম উপস্থিত রয়েছেন। এছাড়াও দুই সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন ও আবুল কাশেম উপস্থিত ছিলেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন