হাসপাতালে ঢুকার আগে সাংবাদিকদের অনুমতি নিতে বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: জানু ৪, ২০২০ / ০৭:০৪অপরাহ্ণ
হাসপাতালে ঢুকার আগে সাংবাদিকদের অনুমতি নিতে বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রায় পাঁচ বছর ধরে পেশাগত দায়িত্বপালনে সাংবাদিকদের প্রবেশ নি’ষিদ্ধ করে রেখেছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এখনও সেই নি’ষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে।

হাসপাতালে প্রবেশে সাংবাদিকদের অনুমতি নিতে বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, হাসপাতালে ঢুকতে হলে আপনারা পরিচালকের অনুমতি নেবেন, তারপর ভেতরে ঢুকবেন।

শনিবার দুপুরে রামেক মিলনায়তনে চিকিৎসকদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, এখানে অনেক ধরনের রোগী থাকে। এর মধ্যে মুমূর্ষু রোগীরাও থাকে। তাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ও সং’ক্র’মণের বিষয়টি আমাদের আগে ভাবতে হয়। তাই সবাইকে সব জায়গায় ঢুকতে দেয়া সম্ভব হয় না।

তবে এ ব্যবস্থা শুধু রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বা বাংলাদেশেই নয়, সারাবিশ্বেই রয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, হাসপাতালে অনেক ধরনের অসুখ-বিসুখ থাকে। তাই বেশি অ্যাটেনডেন্স থাকার কারণে রোগীদের নানা ধরনের জটিলতা দেখা দেয়। এ বিষয়টি আমরা যেমন দেখবো, তেমনি আপনারাও দেখবেন। এটি সবার দায়িত্ব।

২০১৪ সালের ২১ এপ্রিল হাসপাতালে সাংবাদিকদের ওপর ইন্টার্ন চিকিৎসকরা হা’ম’লা চালান। হাসপাতালে রোগীর আত্মীয়কে মা’র’ধরের ঘটনার ছবি ওঠানোর সময় সাংবাদিকদের লাঠি ও হকিস্টিক দিয়ে বে’ধ’ড়ক পে’টা’ন ইন্টার্নরা।

এতে অন্তত ১০ সাংবাদিক আ’হ’ত হন। এ ঘটনায় সাংবাদিকরা প্র’তি’বাদ ও বি’ক্ষো’ভ কর্মসূচি পালন করেন। এরপর থেকে রামেক হাসপাতালে সাংবাদিক প্রবেশে নি’ষে’ধাজ্ঞা জারি করে কর্তৃপক্ষ।

এ বছর রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (রামেবি) কাজ শুরু হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, হাসপাতালের জনবল, যন্ত্রপাতির প্রয়োজন, সেগুলো দেয়া হবে।

তিনি বলেন, ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র) আইসিইউ বা ডাইলাসিস দ্বিগুন করে দেয়া হবে। এছাড়া বাড়ানো হবে শয্যা। ডেন্টাল ইউনিট কলেজ করার কথা হয়েছিল। অনুমোদন দেয়া হলেছিল। অনুমতির প্রয়োজন। একটি গাড়ি দেয়া হবে। প্রয়োজনে অ্যাম্বুলেন্সও দেয়া হবে।

অনুষ্ঠানে রামেকের অধ্যক্ষ ডাক্তার নওশের আলীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিলুর রহমান, রাজশাহী-৫ আসনের সাংসদ প্রফেসর ডা. মনসুর রহমান প্রমুখ।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন