‘ভিপি পদের যোগ্যতা হারিয়েছেন নুর’- সাদ্দাম

প্রকাশিত: ডিসে ২৯, ২০১৯ / ১০:১২অপরাহ্ণ
‘ভিপি পদের যোগ্যতা হারিয়েছেন নুর’- সাদ্দাম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ভবনকে রক্ষা না করে বরং ভবনটিকে অবৈধভাবে ব্যবহার করে ও নিজের লেলিয়ে দেয়া বহিরাগত বাহিনী দিয়ে ভবনের ভাঙচুরে অংশ নিয়ে নুরুল ভিপি পদে দায়িত্ব পালনের যোগ্যতা আবারও হারিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর সহসাধারণ সম্পাদক (এজিএস) সাদ্দাম হোসেন।

রোববার (২৯ ডিসেম্বর) ডাকসু ভবনের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

এসময় সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পক্ষে আমরা বলতে চাই, ‘ভিপি নুরের অপ’কর্ম গোপন করা ও তার সংগঠনের বিস্তৃতির জন্য যদি পুনরায় সাজানো আন্দোলন-আন্দোলন খেলার ক্ষেত্র তৈরি করে ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল করা হয়, শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করা হয়, তাহলে প্রশাসনের নিকট আহবান থাকবে কঠোর হস্তে তা দমন করার।’’

এছাড়া যদি প্রশাসন তা করতে ব্যর্থ হয়, তাহলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে ডাকসু কোনমতেই কালক্ষেপন করবে না বলেও হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে সিসিটিভি ফুটেজ উদ্ধারসহ ছয় দফা দাবি জানান ছাত্রলীগের ডাকসু প্রতিনিধিরা। দাবিগুলো হলো: ছাত্রলীগের ডাকসু প্রতিনিধি, সিনেট সদস্য, হল সংসদের নেতাসহ ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীদের নামে ‘মিথ্যা মা’ম’লার’ অভি’যোগ প্রত্যাহার, ২২ ডিসেম্বর ডাকসু ভবনের ভেতরে অবস্থান করা ভিপি নুরুলের সহযোগী বহিরাগতদের বি’রুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ,

ভবন ভাঙ’চুরের সঙ্গে জড়িত উভয় পক্ষের সদস্যদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ, দু’র্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ডাকসু ভিপি নুরুল হকের পদত্যাগ ও তার ‘দু’র্নীতি’ তদন্তে কমিটি গঠন এবং সাম্প্রদায়িক ও উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ায় নুরুলের নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা, অন্যথায় তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ।

এর আগে গত ২২ ডিসেম্বর ডাকসুর ভিপি নুরুল হক ও তার সঙ্গে থাকা ২০ থেকে ২৫ জন যুবককে মা’র’ধর করে মুক্তিযু’দ্ধ মঞ্চ নামের একটি সংগ’ঠন। ওই হামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কর্মীরাও জড়িত ছিলেন। অভিযোগ আছে, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও এজিএস সাদ্দাম হোসেনের অনুসারিরাই হা’ম’লা করেন।

নুরুলদের ওপর হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগের কোনো ডাকসু প্রতিনিধির বিন্দুমাত্র সংশ্লিষ্টতা নেই বলেও দাবি করেছেন সাদ্দাম। ২২ ডিসেম্বরের হা’ম’লা-ভা’ঙ’চুরের পুরো দায় বুলবুল-মামুন নেতৃত্বাধীন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ও ভিপি নুরুলের সংগঠন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ওপর চাপিয়েছেন তিনি।

সাদ্দাম বলেন, ‘গত রোববারের ঘটনায় ছাত্রলীগের কোনো ডাকসু প্রতিনিধির বিন্দুমাত্র সংশ্লিষ্টতা নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগেরও কেউ জড়িত নয়। মুক্তিযু’দ্ধ মঞ্চ (বুলবুল-মামুন অংশ) নামক একটি সং’গঠনের ওপর ১৭ ডিসেম্বর ভিপি নুরুল হক ও তাঁর সং’গঠন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ যে হামলা চালায়, সেটির জের ধরেই এই ন্যক্কা’র’জনক ঘটনা ঘটেছে।’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন