বাংলা ৫০০ পৃষ্ঠার কবিতার বই মিলল অস্ট্রেলিয়ার প্রাচীন মসজিদে

প্রকাশিত: ডিসে ১৬, ২০১৯ / ০১:৪৯অপরাহ্ণ
বাংলা ৫০০ পৃষ্ঠার কবিতার বই মিলল অস্ট্রেলিয়ার প্রাচীন মসজিদে

একটি বই। যেটার বাহ্যিক পরিচয় একটি ধর্মগ্রন্থ। কিন্তু পাতা ওলটাতেই স্তম্ভিত হয়ে গেলেন গবেষক। ৫০০ পৃষ্ঠার বইটির পাতায় পাতায় ছড়িয়ে আছে বাংলায় লেখা সুফি কবিতা!

অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থেকে প্রায় ১০০০ কিলোমিটার ভিতরে ব্লু মাউন্টেন পার হয়ে দুর্গম গহীন মরুভূমিতে ১৯৬০ সালে ব্রোকেন হিল হিস্টোরিকাল সোসাইটি একটি মসজিদের সন্ধান পায়। করোগেটেড আয়রন দিয়ে তৈরি এ লাল রঙের মসজিদটি তৈরি হয়েছিল ১৮৮৭ সালে।

বেশ কয়েক বছর আগে এখানে খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল একটি প্রাচীন গ্রন্থ। পবিত্র কোরআন শরিফ মনে করে গ্রন্থটি সংরক্ষণ করা হচ্ছিল। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান-বাংলাদেশি গবেষক ড. সামিয়া খাতুন সেখানে গিয়ে দেখতে পান এটি আসলে বাংলা ভাষায় লেখা শত বছরেরও আগের একটি পুঁথি। তার উপর হাতে লেখা ছিল ‘The Holy Koran’।

প্রথম পাতা উলটেই হতবাক হয়ে পড়েন তিনি। কোরআন নয়, এ যে আদ্যোপান্ত একটা বাংলা বই। বইটির প্রকৃত নাম ‘কাসাসোল আম্বিয়া’। অর্থাৎ নবীদের কাহিনী।

বইটি কলকাতা থেকে প্রকাশিত হয় ১৮৬১ সালে। ড. সামিয়া খাতুনের পাওয়া বইটি ছিল ১৮৯৫ সালে প্রকাশিত অষ্টম সংস্করণ। এ বইয়ের কবিতাগুলো শ্রোতাদের কাছে উচ্চস্বরে গাওয়ার জন্য লেখা হয়েছিল।

মুন্সী রেজাউল্লাহ ‘কাসাসোল আম্বিয়া’র প্রথম তিনটি কবিতার লেখক। পুরো বইটি জুড়ে ছড়িয়ে আছে সুফি কবিতা।

ড. খাতুন তার গবেষণায় দেখেছেন, বহু জাহাজি সে সময় ওই এলাকায় গিয়েছিলেন। উটের ব্যবসার সঙ্গেও জড়িত ছিল বহু বাঙালি। অনেক বাঙালি সে সময় আয়ার কাজ করতে সেখানে গিয়েছিলেন বলেও উঠে এসেছে তার গবেষণায়।

গবেষক ড. সামিয়া খাতুন এ গবেষণার সূত্র ধরে বিশ শতকের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ায় তৎকালীন বাংলা এবং ভারতবর্ষ থেকে মানুষের অভিবাসনের চমকপ্রদ এক ইতিহাসের সন্ধান পেয়েছেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন