দিনাজপুরের মেয়র লাইনে দাঁড়িয়েও পেলেন না টিসিবির পেঁয়াজ

প্রায় এক ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও বাংলাদেশ ট্রেডিং কর্পোরেশনের (টিসিবি) ৪৫ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ কিনতে পারলেন না দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম।

বাজারে পেঁয়াজের মূল্য কিছুটা সহনশীল পর্যায়ের রাখতে ৪৫ টাকা কেজি দরে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে- এমন খবরে মঙ্গলবার সকাল থেকে দিনাজপুর ইন্সটিটিউট প্রাঙ্গণে ভিড় করে ক্রেতারা। দুপুর ১২টায় দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম পেঁয়াজ বিক্রি কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

এরপর দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ ক্রয় করে বাজারে চড়া দামে পেঁয়াজ কিনে হাঁপিয়ে ওঠা ক্রেতারা। পুলিশের হস্তক্ষেপে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে পেঁয়াজ কিনে ক্রেতারা।

দুপুর আড়াইটায় পেঁয়াজ কিনতে লাইনে দাঁড়ান দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। কিন্তু প্রায় এক ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েও পেঁয়াজ না পেয়ে খালি হাতে বাড়ি ফিরেছেন তিনি।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম। দেখলাম ৪৫ টাকা কেজি দরে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে আমিও লাইনে দাঁড়াই।

এ সময় আমাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর লোকজন সামনে গিয়ে পেঁয়াজ নিতে বললেও সাধারণ মানুষদের পাশ কাটিয়ে আমি যাইনি। প্রায় এক ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে এগিয়ে যেতে যেতে আমার সামনে যখন আরও ৪-৫ জন লোক ছিল তখনই পেঁয়াজ শেষ।

আগামীকাল (বুধবার) দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সামনে টিসিবির পেঁয়াজ দেয়া হবে, সেখানেই গিয়ে পেঁয়াজ কিনবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে দুইশ’-আড়াইশ’ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনে হাঁপিয়ে উঠা দিনাজপুরের মানুষ ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনতে পেরে অনেকেই বেশ খুশি। পেঁয়াজ কিনতে লাইনে দাঁড়ানো অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী আবেদ আলী বলেন, বরাদ্দ আরও বেশি হলে অনেক মানুষ সুবিধা পেত।

দীর্ঘদিন পর লাইনে দাঁড়িয়ে ৪৫ টাকায় এক কেজি পেঁয়াজ কিনতে পেরে বেশ খুশি শহরের ঘাসিপাড়া নিবাসী স্কুলশিক্ষক মোশাররফ হোসেন বলেন, এ মুহুর্তে ৪৫ টাকায় পেঁয়াজ কিনতে পেরে অন্যরকম আনন্দ লাগছে।

বাজারে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ার পর বাজারে পেঁয়াজের দাম কিছুটা হলেও সহনশীল পর্যায়ে রাখতে টিসিবির মাধ্যমে ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রির কর্মসূচি নেয় সরকার। ইতিমধ্যেই দেশের বিভিন্ন স্থানে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হলেও দিনাজপুরে গতকাল মঙ্গলবার থেকে শুরু হয় এই পেঁয়াজ বিক্রি।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম টিসিবির এই পেঁয়াজ বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধনকালে বলেন, প্রতিদিন এক টন করে বরাদ্দকৃত পেঁয়াজ প্রতিজনকে এক কেজি করে বিক্রি করা হবে।

যতদিন পর্যন্ত পেঁয়াজ মজুদ থাকবে ততদিন টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি অব্যাহত থাকবে। প্রতিদিন শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে এই পেঁয়াজ বিক্রি হবে। দিনাজপুরের আয়তন ও লোকসংখ্যা বিবেচনা করে আরও বেশি বরাদ্দ পেতে চেষ্টা করা হবে বলে জেলা প্রশাসক জানান।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত