শিক্ষিকাকে মে’রে মাথার চুল কে’টে দিলো স্বামী

শেরপুরের নকলা পৌরসভার চরকৈয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীনের (৩৭) মাথার চুল কে’টে শারীরিক নি’র্যা’তন করার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী হাবিবুর রহমানের বি’রু’দ্ধে।

এ ঘটনায় শনিবার তাকে গ্রে’ফ’তার করেছে পুলিশ। হাবিবুর রহমান উপজেলার বানেশ্বর্দী ইউনিয়নের কবুতরমারি গ্রামের মৃ’ত অজিত মাস্টারের ছেলে। নি’র্যা’তি’তা শিক্ষিকা নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১০ নাম্বার বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্কুলশিক্ষিকা শাহনাজ পারভীন সাংবাদিকদের জানান, তাদের প্রায় ৪ বছর আগে বিয়ে হয়। প্রথম বছর ভালোভাবে সংসার করলেও দ্বিতীয় বছর থেকে টাকার জন্য শুরু হয় শারীরিক নি’র্যা’তন। এভাবে তাকে তিন বছর ধরে নি’র্যা’তন করে আসছে। বেতন তুলে টাকা দিলে তখন ভালো আর না দিলেই শুরু হয় স্বামীর অমানুষিক নি’র্যা’তন।

শাহনাজ পারভীন আরও জানান, বৃহস্পতিবার স্কুল শেষে বাসায় প্রবেশ করার সময় তার কাছে টাকা চাইলে- টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাকে মাথার চুল কে’টে পায়ের জুতা ও লাঠি দিয়ে আ’ঘা’ত করে মারাত্মকভাবে আ’হ’ত করা হয়। আ’হ’ত অবস্থায় তিনদিন ধরে তিনি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

এ বিষয়ে নকলা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ মামলা গ্রহণ করে এবং শনিবার ভোরে স্বামী হাবিবুর রহমানকে গ্রে’ফ’তার করে পুলিশ।

এ বিষয়ে শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আমিনুল ইসলাম জানান, আমরা এ বিষয়ে অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করি এবং দ্রুত অভিযান চালিয়ে আ’সা’মিকে গ্রে’ফ’তার করেছি।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত