কলকাতার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচ দেখতে আজ শুক্রবার সকালে কলকাতার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে গোলাপি বলের দিবা-রাত্রির ঐতিহাসিক এ টেস্ট ম্যাচটি দেখতে গেছেন তিনি। ভারতের ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলিও আমন্ত্রণ জানান শেখ হাসিনাকে।

সকাল সোয়া ১০টার দিকে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ত্যাগ করে। তাকে বহনকারী বিমানটি কলকাতার নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে। সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রীকে একটি মোটর শোভাযাত্রা সহকারে কলকাতার হোটেল তাজ বেঙ্গলে নিয়ে যাওয়া হবে। সংক্ষিপ্ত এ সফরকালে তিনি সেখানেই অবস্থান করবেন। পরে স্থানীয় সময় বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ইডেন গার্ডেন স্টেডিয়ামে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর সঙ্গে ঘণ্টা বাজিয়ে ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচটির উদ্বোধন করবেন শেখ হাসিনা।

পরে গোলাপি বলের ঐতিহাসিক ম্যাচটি মাঠে গড়ালে প্রথম সেশন স্টেডিয়ামে বসে উপভোগ করে আবার হোটেলে ফিরে যাবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রথম দিনের খেলা শেষ হলে আবারও ইডেনের মাঠে ফিরে আসবেন তিনি। সেখানে সংক্ষিপ্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পর ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গল আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেবেন শেখ হাসিনা।

এরপর এক দিনের সংক্ষিপ্ত সফর শেষ করে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস বিমানবন্দর থেকে রাত ১০টায় দেশের উদ্দেশে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিশেষ ফ্লাইটে উঠবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাত সাড়ে ১১টার দিকে (বাংলাদেশ সময়) ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীর অবতরণের কথা রয়েছে। দুই প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ ও ভারত এই প্রথমবারের মতো দিবা-রাত্রির টেস্ট ম্যাচ খেলবে যেখানে এই প্রথম গোলাপি রঙের বল ব্যবহার করা হবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের জানান, শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রীয় অতিথির মর্যাদা দেওয়া হবে। তবে পূর্ব নির্ধারিত ব্যস্ততার কারণে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কলকাতায় শেখ হাসিনার সঙ্গে যোগ দেবেন না। এদিকে দিল্লিতে ভারতের লোকসভার অধিবেশন চলায় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ কলকাতায় আসছেন না।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত