চ্যারিটি ফান্ডকাণ্ডে ট্রাম্পকে দুই মিলিয়ন ডলার জরিমানা

দুই মিলিয়ন ডলার (প্রায় ১৭ কোটি টাকা) জরিমানা গুণতে হবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডেনাল্ড ট্রাম্পকে। আর এ জরিমানার অর্থ ট্রাম্পকে তার সঙ্গে সম্পর্ক নেই এমন আটটি জায়গায় খরচ করতে হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্টকে এমন শাস্তি দিল নিউইয়র্কের একটি আদালত।

ডোনাল্ড জে ট্রাম্প ফাউন্ডেশন নামে নিজের দাতব্য তহবিলের (চ্যারিটি ফান্ড) অর্থ রাজনৈতিক প্রচারণায় ব্যবহার করার অপরাধে তার এ শাস্তি দেয়া হলো ট্রাম্পকে।

এক আদেশে বিচারক সালিয়ান স্কারপুলা বলেছেন, ‘ট্রাম্প ও তার সন্তানরা যেসব সমাজসেবামূলক কাজ করেন তা রাজনীতি সংশ্লিষ্ট হতে পারবে না এবং ট্রাম্পের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই এমন আটটি জায়গায় জরিমানার অর্থ খরচ করতে হবে।’

নিউইয়র্কের ওই আদালতে প্রমাণিত হয় যে, ২০১৬ সালের আইওয়া অঙ্গরাজ্যের প্রাথমিক নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের অবসরে যাওয়া বৃদ্ধদের জন্যে সংগৃহীত অর্থ বেআইনিভাবে খরচ করেন ট্রাম্প।

যে দাতব্য সংস্থা থেকে এ বেআইনিকাজ পরিচালনা করেন ট্রাম্প তার পরিচালক ছিলেন ট্রাম্পের তিন সন্তান – ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র, এরিক ট্রাম্প ও ইভাঙ্কা ট্রাম্প।

এমন অপরাধের জন্য ট্রাম্পের এই তিন সন্তানকে দাতব্য সংস্থা নিয়ন্ত্রণকারী বিভাগের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে বাধ্যতামূলক প্রশিক্ষণে নিতে হবে বলে আদেশ দিয়েছেন নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিটিয়া জেমস।

এদিকে নিজের ও তার সন্তানদের ওপর আদালতের এই নির্দেশকে ‘ধুরন্ধর নিউইয়র্ক ডেমোক্র্যাটদের’ কাজ বলে আখ্যা দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্পের আইনজীবীদের দাবি, ট্রাম্পকে আটকাতে নিউইয়র্ক ডেমোক্র্যাটরা সবকিছুই করছে। এটাও তাদের করা একটি চাল মাত্র। ট্রাম্প নির্দোষ।

প্রসঙ্গত ডোনাল্ড জে ট্রাম্প ফাউন্ডেশন নামের চ্যারিটি তহবিলটি ২০১৮ সালে বন্ধ করে দেয়া হয়। এটি ট্রাম্পের অনেকটা রাজনৈতিক স্বার্থ সিদ্ধির জন্য ব্যবহৃত হতো বলে আদালতে প্রমাণিত হয়েছে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত