গরুর দুধে সোনার ভাগ থাকে, আর কুঁজের মধ্যে থাকে স্বর্ণনাড়ি : বিজেপি সভাপতি

ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, “বিদেশ থেকে যে গরু আনা হয়, তা ‘হাম্বা’ আওয়াজ করে না। যে ‘হাম্বা’ ডাকে না, সে গরু গোমাতা নয়, ওটা আন্টি। আন্টির পুজো করে দেশের কল্যাণ হবে না।” সোমবার (৪ নভেম্বর) বর্ধমান শহরের টাউনহলে ‘ঘোষ এবং গাভীকল্যাণ সমিতি’র সভায় এ কথা বলেন তিনি বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে আনন্দবাজার।

এমন মন্তব্যের পর ভারতজুড়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন দিলীপ ঘোষ। গরু নিয়ে শুধু এই তত্ত্ব দিয়েই ক্ষান্ত হননি দিলীপ ঘোষ। তার কথায় গরুর দুধে নাকি ‘সোনা’ আছে। দিলীপ ঘোষের দাবি, গরুর দুধে সোনার ভাগ থাকে। তাই দুধের রং হলুদ হয়। তার ব্যাখ্যা, দেশি গরুর কুঁজের মধ্যে স্বর্ণনাড়ি থাকে। সূর্যের আলো পড়লে, সেখান থেকে সোনা তৈরি হয়।

আর রাজ্য বিজেপি সভাপতির এমন ‘তত্ত্ব’ শুনে বিজ্ঞানী-বিশেষজ্ঞদের চক্ষু চড়কগাছ। তাদের স্বীকারোক্তি, এমন ‘বৈজ্ঞানিক’ গবেষণা পৃথিবীর কোথাও হয়েছে বলে তাদের জানা নেই। এর আগে উত্তরাখণ্ডের বিজেপি মন্ত্রী রেখা আর্য দাবি করেছিলেন, ‘‘গরুই একমাত্র পশু, যে শ্বাস গ্রহণের সময় শুধু অক্সিজেন গ্রহণ করে না, প্রশ্বাসের সঙ্গে তা পরিবেশে ফিরিয়েও দেয়।” বিজেপি সাংসদ সাধ্বী প্রজ্ঞা বলেন, “তিনি স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। গোমূত্র পান করে আর পঞ্চগব্য গ্রহণ করে নিজেকে সারিয়ে তুলেছেন। ”

আনন্দবাজারের ওই প্রতিবেদনে পশ্চিমবঙ্গ প্রাণী ও মৎস্যবিকাশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন তরুণকুমার মাইতিকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, ‘‘গরুর দুধে অনেক কিছুই থাকে। তবে সোনা আছে বলে শুনিনি।” যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘স্কুল অব এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস’-এর কর্মকর্তা তড়িৎ রায়চৌধুরী বলেন, ‘‘পৃথিবীর কোথাও গরুর দুধের রাসায়নিক বিশ্লেষণে সোনা মিলেছে বলে জানা নেই।”

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নের অধ্যাপক স্বপন চক্রবর্তী মজা করে বলেন, ‘গরুর দুধে যদি সোনা থাকত, তা নিয়ে তো কাড়াকাড়ি পড়ে যেত।’ ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের ফার্মাকোলজির শিক্ষকের মন্তব্য, ‘বিজেপি আর বিজ্ঞান- মেলানো কঠিন। তারা জানেন, গোদুগ্ধে কী আছে। অযথা এ সব বলে জনতাকে বিভ্রান্ত করছেন, অনেক বড় সমস্যা থেকে তাদের নজর ঘুরিয়ে দিতে।’

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত