বাংলাদেশের হয়ে খেলতে চাওয়া ‘জাপানি কন্যা’ বাফুফের ক্যাম্পে

প্রকাশিত: জানু ২৪, ২০২৩ / ০৭:১০অপরাহ্ণ
বাংলাদেশের হয়ে খেলতে চাওয়া ‘জাপানি কন্যা’ বাফুফের ক্যাম্পে

বাবা মাসুদুর রহমান বাংলাদেশি, মা মাতসুশিমা তমোমি জাপানি। তাদের কন্যা ২১ বর্ষী মাতসুশিমা সুমাইয়ার জন্ম জাপানে। লাল-সবুজ জার্সি গায়ে জড়ানোর লক্ষ্যে বসুন্ধরা কিংসে যোগ দিয়েছিলেন এ মিডফিল্ডার। শেষ খবর, বাংলাদেশের হয়ে খেলার ইচ্ছাপূরণের পথে একধাপ এগিয়ে গেছেন সুমাইয়া। বাফুফে তাকে ক্যাম্পে ডেকে নিয়েছে।

বাফুফে ভবনে সারাবছর চলে নারী ফুটবলারদের আবাসিক ক্যাম্প। সেখানে এখন ৬৮ জন ফুটবলার রয়েছেন। যার মধ্যে চারজন প্রথমবার ডাক পেয়েছেন। সুমাইয়া’সহ ডাক পাওয়া নতুনরা হলেন- জামালপুর কাচারীপাড়া একাদশের আফরোজা খাতুন, নাসরিন স্পোর্টস ক্লাবের আইরিন আক্তার ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া এফসির সাগরিকা।

গত বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে মালদ্বীপে মেয়েদের ঘরোয়া ফুটবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় দিবেহি সিফাইং। দলটিতে বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুনের সঙ্গে খেলেছিলেন সুমাইয়া। আসরের এক ম্যাচে ক্লাব এমওয়াইএসর বিপক্ষে ‘জাপানি কন্যা’ করেছিলেন ৬ গোল।

ফেব্রুয়ারির ১৩ থেকে ২৫ তারিখের মধ্যে দুটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দল। ম্যাচগুলো বিদেশের মাটিতে খেলবেন সাবিনা-মারিয়ারা। তাদের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করার দৌড়ে সুমাইয়া সুযোগ পেতে পারেন।

২০২৪ প্যারিস অলিম্পিকে মেয়েদের ফুটবলে এশিয়া অঞ্চলের বাছাইপর্বে বি গ্রুপে পড়া বাঘিনীদের প্রতিপক্ষ মিয়ানমার, ইরান ও মালদ্বীপ। খেলাগুলো ৩ এপ্রিল শুরু হয়ে ১১ এপ্রিল শেষ হবে। সেখানেও মিলতে পারে সুমাইয়ার সুযোগ।

মেয়েদের জাতীয় দলের কোচ গোলাম রব্বানি ছোটন অবশ্য তাকে নিয়ে বিশেষভাবে কিছু বলছেন না। চ্যানেল আই অনলাইনকে কেবল বললেন, ‘দুইদিন হল ক্যাম্পে এসেছে, ট্রেনিং করছে। আমরা তাকে দেখছি। সম্ভাবনাময় বলেই এসেছে। যারা ক্যাম্পে আছে সবাই সম্ভাবনাময়। তার সঙ্গে আরও তিনজন নতুন এসেছে। তাদেরও ভালো করার সম্ভাবনা আছে।’

‘মাত্র দুইদিন হয়েছে সুমাইয়া এসেছে। ক্যাম্পে সে কতটুকু মানিয়ে নিতে পারে, কতটা কি করতে পারে, এটা আরও কয়েকদিন গেলে বোঝা যাবে।’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন