‘বালিশের দাম ২৭,৭২০ টাকা’ মুদ্রণে ভুল হতে পারে, বললেন উপাচার্য

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণ শুরুর আগেই ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। প্রকল্পের যে ১২টি আইটেমের দাম ধরা হয়েছে তা বাজার মূল্যের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি। ডিপিপিতে নির্মাণসামগ্রী ও আসবাবপত্র ক্রয়ে পণ্যের মূল্য ব্যাপক অসংগতির কারণে ডিপিপি বাতিল করা হয়েছে।

ফলে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের গত ২ সেপ্টেম্বর বৈঠকে প্রস্তাবিত ডিপিপি বাতিল করে নতুন ডিপিপি তৈরির সিদ্ধান্ত হয়েছে। ডিপিপি তৈরিতে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজন মনে করছেন অনেকেই। তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে চার/পাঁচ বছর সময় লাগবে। তখন বাজার মূল্য বৃদ্ধির কথা চিন্তা করে ডিপিপি তৈরি করা হয়েছে।

প্রস্তাবিত ডিপিপিতে প্রতিটি বালিশের মূল্য ধরা হয়েছে ২৭ হাজার ৭২০ টাকা, বালিশের কাভার ২৮ হাজার টাকা, সূতি তোয়াল ৫ হাজার ৮৮০ টাকা, সাদা গাউন ৪৯ হাজার টাকা, হ্যান্ড গ্লাভস ৩৫ হাজার টাকা ও মালটি প্লাস ৬ হাজার ৩০০ টাকা।

প্রস্তাবিত ডিপিপি প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ডা. মো. ইসমাঈল খান বলেন, ডিপিপিতে পণ্য মূল্য নিয়ে অসংগতি থাকায় পরিকল্পনা কমিশনে গত ২ সেপ্টেম্বর বৈঠকে বাতিল করা হয়েছে। নতুন করে ডিপিপি তৈরির জন্য সিদ্ধান্ত হয়েছে। ডিপিপিতে কিছু হিসাব আগে দেখানো হয়েছে। এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়নি। কিন্তু আসবাবপত্রসহ অন্যান্য পণ্যের প্রস্তাব করা হয়েছে। অথচ এগুলো পরের বিষয়।

ডিপিপি মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়ার আগে দেখেছেন কি না জানতে চাইলে ভিসি বলেন, আমি দেখেছি। মুদ্রণ ভুলে হয়তো হিসাব গরমিল হয়েছে। আসবাবপত্র চার/পাঁচ বছর পরে কিনতে হবে। তখনকার বর্ধিত মূল্য চিন্তা করে হয়তো ডিপিপি তৈরি করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট এলাকায় ২৪ একর জায়গার ওপর চট্টগ্রাম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণ করা হচ্ছে। ২২ তলা বিশিষ্ট ১ হাজার বেডের দুইটি হাসপাতাল হবে। ২০ তলা বিশিষ্ট দুই বেজমেন্টের প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ করা হবে। ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা ব্যয় সাপেক্ষ প্রকল্পটি ২০২২ সাল পর্যন্ত মেয়াদ রয়েছে। বর্তমানে ফৌজদারহাট এলাকায় অবস্থিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট ফর ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজ হাসপাতাল ভবনের একটি ফ্লোরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। সূত্র : ইত্তেফাক

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত