নতুন ট্রাফিক আইন, গাড়িতে ক’নডম না থাকলেই জরিমানা করছে পুলিশ

নতুন ট্রাফিক আইনের বিভিন্ন নিয়ম-বিধিনিষেধ নিয়ে এমনিতেই সমালোচনার শেষ নেই ভারতে। এবার নতুন আরো একটি নিয়ম এসেছে আলোচনায়, যা শুনে অনেকেই বিস্মিত হচ্ছেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি নিউজের প্রতিবেদন জানাচ্ছে, ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন ট্রাফিক আইন চালু হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ বাদে সব রাজ্যে এরই মধ্যে ওই আইন কার্যকর করা হয়েছে। নতুন এই আইন লঙ্ঘন করলেই দিতে হচ্ছে বড় অঙ্কের জরিমানা। জরিমানার অঙ্ক ৮০ হাজার টাকায় পৌঁছে যাওয়ার খবরও এসেছে সংবাদমাধ্যমগুলোতে।

এমনকি উত্তরপ্রদেশে কার্যকর হতে যাচ্ছে নতুন পোশাকবিধি। স্থানীয় সরকারের সংশোধিত মোটরযান আইন অনুযায়ী এটি কার্যকর হচ্ছে। এতে বিধিনিষেধ এসেছে লুঙ্গি ও গেঞ্জি পরে ট্রাক চালানোতেও। আইনে বলা হয়েছে, লুঙ্গি ও গেঞ্জি পরা অবস্থায় ট্রাক চালালে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা করা হবে অভিযুক্ত চালককে। তবে এতকিছুর ভিড়ে নতুন আরেকটি ‘নিয়ম’ সবাইকে বিস্মিত করেছে।

বার্তা সংস্থা এএনআই-এর বরাত দিয়ে জি নিউজের প্রতিবেদন জানাচ্ছে, গাড়ির ফার্স্ট এইড বা প্রাথমিক চিকিৎসার ওষুধপত্র রাখার জন্য বক্সে ক’নডম (জন্মনিরোধক) না থাকলে জরিমানা করছে ট্রাফিক পুলিশ। কিন্তু কেন গাড়ির ফার্স্ট এইড বক্সে ক’নডম রাখার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে, সে বিষয়ে কিছুই অবগত নন ক্যাব চালকেরা। ফলে তাঁরাও রয়েছেন ধোঁয়াশার মধ্যে। চালকেরা জানাচ্ছেন, ফার্স্ট এইড বক্সে ক’নডম না থাকলেই জরিমানার চালান হাতে ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে চালকদের।

তবে দিল্লি ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে ক্যাব চালকদের এমন দাবিকে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, এরকম দাবি একেবারেই ভিত্তিহীন। চালকদের প্রতিও পরামর্শ আছে পুলিশের। যদি কোনো চালকের সঙ্গে এমন কোনো ঘটনা ঘটে থাকে, তাহলে তিনি যেন অবশ্যই লিখিত আকারে পুলিশকে জানান, এমনটিই পরামর্শ তাঁদের। চালকদের আশ্বাস দিতেও ভোলেনি ট্রাফিক পুলিশ বিভাগ। জানানো হয়, অভিযোগের ভিত্তিতে এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে দিল্লি ট্রাফিক পুলিশ।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত