মন্ত্রিপরিষদ সচিব বললেন ‘মিনিকেট নামে চাল বিক্রি করা যাবে না’

প্রকাশিত: অক্টো ৬, ২০২২ / ১২:৫৭পূর্বাহ্ণ
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বললেন ‘মিনিকেট নামে চাল বিক্রি করা যাবে না’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেছেন, দেশে মিনিকেট নামে কোনো চাল বিক্রি করা যাবে না। মিলে চাল বস্তাজাত করার সময় তাতে জাতের নাম লিখে দিতে হবে। কেউ যদি এর ব্যত্যয় করে সেক্ষেত্রে আমরা তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থায় যাব। ১৫-২০ দিন আগে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার সম্প্রসারণ বিভাগ দিয়েছে।

আজ বুধবার গাজীপুরে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) সদর দপ্তরে কৃষিবিজ্ঞানী ও কৃষিসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা এবং প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিতে এসে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এসব কথা বলেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘গবেষকদের উদ্ভাবিত জাতগুলো যদি আমরা বিভিন্ন বিভাগের সঙ্গে আরও সুন্দরভাবে কো-অর্ডিনেশনের মাধ্যমে দ্রুত কৃষকদের পৌঁছে দিতে পারি। তবে, আগামী পাঁচ-ছয় বছরের মধ্যে আমাদের ফলন দ্বিগুণের কাছাকাছি চলে যাবে।’ এ সময় তিনি উদ্ভাবিত জাত ও প্রযুক্তি মাঠপর্যায়ে দ্রুত সম্প্রসারণ এবং অংশীজনদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ানোর তাগিদ দেন।

দুপুরে ইনস্টিটিউটের অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন কৃষি সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম। এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব এন এম জিয়াউল আলম, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নাহিদ রশীদ, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সচিব কামরুন নাহার, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান এ এফ এম হায়াতুল্লাহ এবং বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের নির্বাহী চেয়ারম্যান, ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার।

এ ছাড়া বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার অ্যাগ্রিকালচারের মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলামসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর।

আলোচনা সভায় জানানো হয়, ফলনোত্তর সময় প্রতি বছর ২০ হাজার কোটি টাকার কৃষি পণ্য ক্ষতি হচ্ছে সংরক্ষণের অভাবে। এসব পণ্য সংরক্ষণের জন্য গামা রেডিয়েশন ব্যবহার করার প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে বিনা। বিভিন্ন উন্নত দেশে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে তারা কৃষি পণ্য দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করেন এবং বিদেশে রপ্তানি করেন। আমাদের দেশে যদি এ প্রযুক্তির ব্যবহার করা যায় তাহলে বিশ্ববাজারে কৃষি পণ্য রপ্তানি করা সহজ হবে।

সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীরা জানান, রেডিয়েশনের এই পদ্ধতি ফল বা সবজিতে ব্যবহার করলে সেগুলো পচবে না, ফ্রেশ থাকবে, কালার এমনকি স্বাদেও কোনো পরিবর্তন আসবে না। এ পদ্ধতি মাছ ও মাংসেও ব্যবহার করা যাবে। এই পদ্ধতি সম্প্রসারণে সরকারের সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন প্রধান অতিথি মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

এর আগে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম অন্যান্য সচিবদের সঙ্গে নিয়ে ব্রি ক্যাম্পাসে রাইস মিউজিয়াম পরিদর্শন করেন। এরপর তিনি ব্রির উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগ, হাইব্রিড রাইস বিভাগ, কৌলি সম্পদ ও বীজ বিভাগ, জীব প্রযুক্তি বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগ ও স্টল পরিদর্শন করেন।

এ সময় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, কৃষি মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবরা, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার ও অন্যান্য বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার, বাংলদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক, কৃষিমন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন দপ্তর ও সংস্থার মহাপরিচালক ও পরিচালক, প্রকল্প পরিচালক এটুআই, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, পরিচালক কৃষি তথ্য সার্ভিস ও ডিএইর সব অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক, জিএমপি কমিশনার, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, ব্রির বিভাগীয় প্রধান এবং অন্যান্য বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন