চাচির সঙ্গে প্রেমিককে দেখে ফেলাই কাল হলো ভাতিজার

প্রকাশিত: অক্টো ২, ২০২২ / ১১:০৬অপরাহ্ণ
চাচির সঙ্গে প্রেমিককে দেখে ফেলাই কাল হলো ভাতিজার

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় পরকীয়া প্রেমে বাধা দেওয়ায় এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে।

রোববার (২ অক্টোবর) এ ঘটনায় আহতের বড় ভাই মুজিবুর রহমান বাদী হয়ে ১১ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এর আগে গত শুক্রবার রাতে উপজেলার কলাদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ব্যক্তি উপজেলার কলাদিয়া গ্রামের মৃত সুরুজ আলীর ছেলে মিজানুর রহমান মাসুদ। তিনি কলাদিয়া সিডস্টোর বাজারের মুদি দোকানি।

অভিযুক্তরা হলেন- কলাদিয়া গ্রামের মৃত খুরশিদ উদ্দিনের ছেলে হানিফা (৩৫), মৃত উসমানের ছেলে নজরুল ইসলাম (৩৫), আবদুর রশিদের ছেলে শাহপরান (১৯), বাচ্চু মিয়ার ছেলে তাকবির (১৯), হাদিউল ইসলামের ছেলে নাঈম (১৯), ইদ্রিস আলীর ছেলে মীম সাদ (১৯), মৃত ওসমান আলীর ছেলে আবদুর রশিদ (৫৫), সাফির উদ্দিনের ছেলে রেজুয়ান (১৯), আবদুল হাসিমের ছেলে ইদ্রিস আলী (৪০), সাফির উদ্দিন (৪৫) ও কফিল উদ্দিন (৪০)।

বর্তমানে ওই ব্যবসায়ী পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় আহতের বড় ভাই মুজিবুর রহমান বাদী হয়ে রবিবার (২ অক্টোবর) ১১ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে শাহপরান ভু্ক্তভোগী চাচির সঙ্গে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে চাচির সঙ্গে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হলে বিষয়টি ভুক্তভোগী মাসুদ দেখে ফেলেন। এ সময় অভিযুক্ত শাহপরানকে আটক করেন ভুক্তভোগী।

এদিকে পরিবারের সম্মানহানির ভয়ে তাকে ছেড়ে দেন ভুক্তভোগী মাসুদ। এরই জেরে গত শুক্রবার রাত ১০টার দিকে ভু্ক্তভোগী মাসুদ দোকান থেকে বাড়িতে ফেরার পথে শাহপরানের বাড়ির সামনে পৌঁছলে ১০ থেকে ১২ জনের একটি দল নিয়ে মাসুদের পথরোধ করে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। এ সময় স্থানীয়রা তাকে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

এ বিষয়ে পাকুন্দিয়া থানাধীন আহুতিয়া তদন্তকেন্দ্রের উপপরিদর্শক (এসআই) নূরুল হক বলেন, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন