গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি একতা কাপুরের বিরুদ্ধে

প্রকাশিত: সেপ্টে ২৯, ২০২২ / ১২:৪২অপরাহ্ণ
গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি একতা কাপুরের বিরুদ্ধে

বলিউড পরিচালক ও অভিনেত্রী একতা কাপুর এবং তার মা শোভা কাপুরের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন ভারতের একটি আদালত। ওয়েব সিরিজে ভারতীয় সেনা কর্মকর্তাদের অপমান এবং তাদের স্ত্রী ও পরিবার নিয়ে অসম্মানজনক দৃশ্যায়নের অভিযোগে এ পরোয়ানা জারি হয়েছে।

বুধবার এ সংক্রান্ত মামলার শুনানি শেষে বিহারের বেগুসরাই আদালতের বিচারক এ নির্দেশ দেন। খবর এনডিটিভির।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২০ সালের ৬ জুন সাবেক সেনা কর্মকর্তা শম্ভু কুমারের পক্ষ থেকে আদালতে একটি পিটিশন দাখিল করা হয়েছিল। সেখানে বলা হয়, এই ওয়েব সিরিজে ভারতীয় সেনা কর্মকর্তাদের স্ত্রীদের নিয়ে অসম্মানজনক দৃশ্য দেখানো হয়েছে। \

আর্মি অফিসাররা ডিউটিতে থাকাকালীন তাদের স্ত্রীরা অন্য পুরুষের সঙ্গে বিবাবহির্ভূত সম্পর্কে জড়াচ্ছেন, তা ‘এক্সএক্সএক্স আনসেন্সার্ড’ ওয়েব সিরিজে দেখানোটা সেনা কর্মকর্তাদের স্ত্রীদের প্রতি অসম্মানসূচক কাজ। এ নিয়ে আপত্তি জানানো হয়েছিল শহিদ কল্যাণ ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে।

এ সিরিজের প্রযোজক একতা কাপুর ও শোভা কাপুরের বিরুদ্ধে মামলা দাখিল হওয়ার পর ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাদের নামে সমন জারি করা হয়েছিল। সেই সমনপত্র একতার অফিস থেকে গ্রহণও করা হয়।

অভিযোগকারীর দাবি— ‘এক্সএক্সএক্স আনসেন্সার্ড’-এ ওই দৃশ্যটি তাকে খুবই মর্মাহত করেছে। তার মতে, সেনাকে শ্রদ্ধার চোখে দেখা উচিত। এভাবে ইন্ডিয়ান আর্মিকে অপমান করার অধিকার কারও নেই।

দুই বছর আগে অবশ্য সিরিজ থেকে বিতর্কিত দৃশ্য ছেঁটে ফেলে ক্ষমা চেয়েছিলেন একতা কাপুর। ভিডিওবার্তায় তাকে বলতে শোনা গিয়েছিল— ‘ব্যক্তিগতভাবে এবং সংস্থা হিসেবেও দেশের সেনাবাহিনীর প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল। আমাদের সুরক্ষা প্রতিমুহূর্তে ভারতীয় সেনার অবদান অনস্বীকার্য।’

একতা আরও বলেছিলেন, ‘আমরা অবিলম্বে বিনাশর্তে ক্ষমা চাইতে রাজি আছি, যদি কোনো সেনা সংগঠনের তরফ থেকে আমাদের তেমনটি বলা হয়। কিন্তু অসভ্য সাইবার বুলিং আর ধর্ষণের হুমকির সামনে মাথা নত করব না।’

এর পরও কেন মা-মেয়ের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হলো, এ নিয়ে শম্ভুর আইনজীবী ঋষিকেশ পাঠক জানিয়েছেন— আপত্তিকর দৃশ্য ছাঁটাই করলেও এ মামলায় সমন জারির পরও এখনো তারা (একতা ও শোভা কাপুর) আদালতে হাজিরা দেননি। এ কারণেই তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন