ফ্রিজে যে খাবারগুলো রাখা উচিত নয়

প্রকাশিত: সেপ্টে ২৬, ২০২২ / ১২:০৪অপরাহ্ণ
ফ্রিজে যে খাবারগুলো রাখা উচিত নয়

আমরা ফ্রিজে খাবার রাখি যেনো খাবার সতেজ থাকে এবং পঁচে না যায়। সেই সাথে অনেকদিন রেখে খাওয়া যায়। আপনি কী জানেন কিছু খাবার আছে যেটা ফ্রিজে রাখা উচিত নয়? এমনকি এসব খাবার ফ্রিজে রাখলে উল্টো দ্রুত নষ্ট হতে থাকে। পুষ্টিগুনের সাথে স্বাদও কমিয়ে দেয়।

চলুন সেই বিষয়টি জেনে নেই।

পাউরিুটি

যদিও এই পাউরুটি নিয়ে বিতর্ক আছে। কিন্তু পাউরুটি ফ্রিজে রাখা উচিত নয়। এত পাউরুটির কণাগুলো দ্রুত শক্ত হয়ে বাসি হয়ে যায়। স্বাদ এবং গন্ধও নষ্ট হয়ে যায়।

টমেটো

অনেকেই টমেটা ফ্রিজে রাখেন। টমেটো স্বাভাবিক তাপমাত্রায় ঘরেও পাকতে থাকে। টমেটা যদি ফ্রিজে রাখা হয় তাহলে পাকা বন্ধ হয়ে যায় এবং এর ওপরের চামড়া নষ্ট হয়ে যায়। পানি পানি হয়ে যায় ধীরে ধীরে। স্বাদও কমে যায়। স্বাদ ধরে রাখার জন্য সরাসরি সূয়ের আলো থেকে দূরে বাইরে রাখুন।

মধু

মধু নিজেই একটি প্রিজারভেটিভ। তাই এটিকে ফ্রিজে রাখার দরকার নেই। ফ্রিজে রাখলে হালকা শক্ত হয়ে যায়। যদি তরল মধু খেতে চান এটি ফ্রিজে না রাখাই ভালো।

আস্ত তরমুজ

আস্ত তরমুজ অনেকে ফ্রিজে রেখে দেয়। কারণ মনে করা হয় অনেক দিন ভালো থাকে। আপনি জানেন কী তরমুজ আস্ত না রেখে কেটে একটি বক্সে ভরে রেখে দিলে ভালো হয়। আস্ত রেখে দিলে এর রং, স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।

পেঁয়াজ ও রসুন

অনেকে পেঁয়াজ ফ্রিজে রেখে দেন। এটা উচিত নয়। এতে ফ্রিজে গন্ধ হয় সাথে পিঁয়াজের স্বাদে পরিবর্তণ আসে। রসুনের ক্ষেত্রেও তাই হয়। অনেক সময় নষ্টও হয়ে গন্ধ পরিবর্তণ হয়ে যায়।

আলু

আলুও ফ্রিজে সংরক্ষণ করা উচিত নয়। বিশেষজ্ঞের মতে আলু যখন ফ্রিজে সংরক্ষণ করা হয় তখন আলুতে থাকা স্টার্চ চিনিতে রূপান্তরিত হয়। বেক করা বা ভাজা হলে এই শর্করা অ্যামিনো অ্যাসিড অ্যাসপারাজিনের সাথে একত্রিত হয় এবং রাসায়নিক অ্যাক্রিলামাইড তৈরি করে, যা ক্ষতিকারক বলে মনে করা হয়।

সূত্র : মিরর।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন