আফগানিস্তানে মেয়েদের স্কুল এক বছরেও খোলেনি

প্রকাশিত: সেপ্টে ২২, ২০২২ / ১১:৫৯অপরাহ্ণ
আফগানিস্তানে মেয়েদের স্কুল এক বছরেও খোলেনি

এক বছর হয়ে গেছে মেয়েদের হাইস্কুল খোলেনি আফগানিস্তানে। ইউনাইটেড মিশন্স ইন আফগানিস্তান বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, বিশ্বের কোনো দেশে এ রকম হয় না। তালেবান কর্তৃপক্ষ এর কোনো যৌক্তিক ব্যাখ্যা দিতে পারেনি।

জাতিসংঘের দাবি, অবিলম্বে মেয়েদের হাইস্কুল খুলতে হবে। বিবৃতি দিয়ে তারা বলেছে, এক বছর ধরে মেয়েদের হাইস্কুল বন্ধ। তালেবান অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, কিন্তু তারা তা রাখতে পারেনি। এই ঘটনা খুবই দুঃখের, লজ্জার এবং তা অনায়াসেই এড়ানো যেত।

গতবছর ক্ষমতায় আসার পর তালেবান মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুল বন্ধ করে দেয়। তবে গত কয়েক সপ্তাহে চুপচাপ কয়েকটি স্কুল খুলেছিল।

এএফপি জানাচ্ছে, মেয়েদের হিজাব পরে স্কুলে যেতে দেখা যাচ্ছে। যদিও কয়েকটি এলাকায় তালেবান জানিয়ে দিয়েছে, সরকারি নীতির কোনো পরিবর্তন হয়নি।

স্থানীয় মিডিয়ায় মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার ফুটেজ আসার পর সেই স্কুলগুলোকে আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পূর্ব পাকতিয়াতে মেয়েরা এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে, সেই ফুটেজও সামনে এসেছে।

তালেবান মেয়েদের স্কুলে যেতে অনুমতি দেয় কি না, তা জানার জন্য অপেক্ষা করছেন আফগানরা। এর আগের দুই দশকে আফগানিস্তানে মেয়েদের স্কুলে যেতে দেওয়া হতো, তাদের চাকরি করতে দেওয়া হতো।

বেশ কিছু তালেবান নেতা জানিয়েছিলেন, মেয়েদের স্কুলে যেতে না দেয়ার বিষয়টি সাময়িক। কিন্তু এখনো সরকারি নীতিতে কোনো বদল ঘটেনি। তারা স্কুল খোলার কোনো সময়সীমাও দেয়নি।

কট্টরপন্থী তালেবানরা স্কুল খোলার জন্য বেশ কিছু অজুহাত দিয়েছে। তারা বলেছে, স্কুলের পাঠক্রম ঢেলে সাজানোর জন্য তাদের অর্থ চাই।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস রোববার টুইট করে বলেছেন, একটা বছর কেটে গেল। জ্ঞান অর্জনের ও পড়ার সুযোগ নষ্টের এক বছর। এই সময়টা আর ফিরে আসবে না। মেয়েদের স্কুলে যেতে দিতেই হবে। তালেবানদের সেই ব্যবস্থা করা উচিত। সৌজন্যে : ডয়চে ভেলে

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন