জমি লিখে না দেওয়ায় মাকে মারধর, বৃদ্ধ বাবাকে গৃহবন্দি

প্রকাশিত: আগ ১৬, ২০২২ / ০৩:১৫অপরাহ্ণ
জমি লিখে না দেওয়ায় মাকে মারধর, বৃদ্ধ বাবাকে গৃহবন্দি

সুনামগঞ্জের ছাতকে জমি লিখে না দেওয়ায় বৃদ্ধ বাবাকে ঘরে বন্দি ও মা অনেকজান বিবির (৮০) মাথার চুল ধরে টেনেহিঁচড়ে মাটিতে ফেলে মধ্যযুগীয় কায়দায় কিল-ঘুষি, মারধর করে মারাত্মক জখম এবং বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ছেলের বিরুদ্ধে।

থানায় তার বড় ছেলে নুনুহর আলী, তার স্ত্রী রেজনা বেগম, নাতি সাইদ ও সুনুমিয়াকে আসামি করে গত ১৫ আগস্টে বৃদ্ধ মা অনেকজান বিবি বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

শুধু তাই নয়, মাকে বাড়ি থেকে বের করে এবং বাবাকে বসতঘরে বন্দি করে রাখা হয়েছে বলে সূত্রে জানা গেছে। বৃদ্ধ মা অনেকজান বিবি স্বয়ং ছেলের বিরুদ্ধে থানায় এ অভিযোগ করেছেন।

গত ১৪ আগস্ট উপজেলার উত্তর খুরমা মৈশাপুর গ্রামে বাবা-মায়ের বসতঘরে প্রবেশ করে মায়ের ওপর মধ্যযুগীয় কায়দায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

আহত বৃদ্ধ মা অনেকজান বিবি ও তার পুত্র ইলিয়াস আলীকে ছাতক উপজেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বৃদ্ধ অনেকজান বিবি উপজেলার উত্তর খুরমা মৈশাপুর গ্রামে স্বামী হানিফ উল্লাহর স্ত্রী।

জানা যায়, দীঘ ২০ বছর আগে তার বড় পুত্র নুনুহর আলীর পরিবারকে পৃথক করে দেওয়া হয়। তার মা-বাবা তার পুত্রকে পৃথক অন্য একটি ঘর তৈরি করে বসবাস করেন। কয়েক দিন ধরে বাবা-মায়ের বসতঘরে ঢুকে দেশি অস্ত্র দেখিয়ে জায়গাজমি সম্পতি লিখে দেওয়ার জন্য তার বাবা ও মাকে একাধিকবার প্রস্তাব দিয়েছিল।

তারা তার প্রস্তাব না মানায় গত ১৪ আগস্ট বিকালে বাবা ও মাকে প্রস্তাব দিলে ও তার কথামতো বাবা-মা তার প্রস্তাবে রাজি হয়নি। পরে নুনুহর আলী ও তার স্ত্রী পুত্র ও কন্যার নেতৃত্বে তারা ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে বৃদ্ধা মাকে জোরপুবক ঘরে ঢুকে মাথার চুলে ধরে টানা হেছড়া করে মাটিতে ফেলে মধ্যযুগী কায়দায় কিল, ঘুষি, মারধর, গায়ের কাপড় ছিড়ে মারাত্নক জখম করেছে বৃদ্ধাকে।

এ সময় বৃদ্ধা মায়ের আতৎচিৎকার শুনে তার অপর পুত্র ইলিয়াস আলী এদের কবল থেকে আপন মাকে উদ্ধার করতে গিয়ে সে ও হামলার শিকার হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে আহত বৃদ্ধা মাকে আশে পাশে লোকজন উদ্ধার করে ছাতক উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বৃদ্ধা বাবাকে গৃহবন্ধী.ঘরের বাইরের তালা ভেঙ্গে সন্ত্রাসী ছেলের হাত থেকে উদ্ধার করেন ও আহত বৃদ্ধা অনেকজান বিবিকে বাড়ি থেকে মারপিট করে বের
করে দেওয়ার ঘটনার সত্যতা পেয়ে অবশেষে তার বসত ঘরে ঢুকিয়ে দিয়েছে পুলিশ। সন্ত্রাসী ছেলেকে পুলিশ গ্রেফতারের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছেন।

আহত বৃদ্ধা অনেকজান বিবি কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, দীঘ ২০ বছর ধরেই তার বড় ছেলে সঙ্গে কোনো সম্পক নেই। তার অন্যায় কমকাণ্ডের ঘটনাটি আমি স্থানীয় মেম্বার, চেয়ারম্যান ও এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিদেরকে মৌখিকভাবে অবগত করার পর সে আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারপিট করেছে ও তার বাবা ঘরে ভিতরে বন্ধী করে বাইরের তালাবদ্ধ করে রাখা হয়।

এব্যাপারে বাবা হানিফ উল্লাহ (১০০) এ ঘটনার সত্যাতা নিশ্চিত করে বলেন, তার বড় ছেলে তাদের উপর একাধিকবার হামলা ঘটনা ও ঘটিয়ে তার বড় ছেলে ও তার পরিবার। এসব ঘটনার কারণে তারা গত ২০০২ সালে ১৫ সেপ্টেম্বর আদালতে মাধ্যমে নুনুহর আলীকে ত্যাজপুত্র করে দেওয়া হয়। তার নামে জমি লিখে না দিলে আমাকে হত্যা করবে বলে হুমকি দিচ্ছে।

বৃদ্ধার মেয়ে আনোয়ারা বেগম এ ঘটনার সত্যাতা নিশ্চিত করে বলেন, বাবা-মাকে জমি লিখে দেওয়ার জন্য একাধিকবার মারপিট করেছে। বাবা-মা অনেক সময় পালিয়ে বাড়ির বাইরে থাকত।

গত ১৫ আগস্ট বাবা ও মাকে মারপিটের কথা শুনে এখানে এসেছি। মা ও তার ভাইকে মারধর করেছে। বাবাকে ঘরে ভেতরে বন্দি করে বাইরে তালাবদ্ধ করা রাখা হয়েছে। জায়গা জমি লিখে না দিলে বাবা ও মাকে হত্যা করবে বলে হুমকি দিচ্ছে।

এ ব্যাপারে ওসি মাহবুবুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থলে রাতেই পুলিশ পাঠানো হয়ে। তবে পুলিশ ঘটনার তদন্ত করবে। অভিযোগের সত্যতা পেলে আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন