রেলের জমিতে পুকুর করল আওয়ামী লীগ নেতা

প্রকাশিত: মে ১১, ২০২২ / ০৩:১২অপরাহ্ণ
রেলের জমিতে পুকুর করল আওয়ামী লীগ নেতা

দীর্ঘদিন ধরে খাজনা পরিশোধ না করে রেলের জমিতে দোকানঘর বানিয়ে ভাড়া দেন পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার আবুল কালাম আজাদ।

এরপর ওই স্থানে পুরনো ভবন ভেঙে পাঁচতলা ভবনের নির্মাণকাজ শুরু করেন। রেল কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও দোতলার ছাদের নির্মাণকাজ শেষ করেন তিনি। এ অবস্থায় দুই মাস আগে রেল কর্মকর্তারা অভিযান চালিয়ে ওই বাণিজ্যিক ভবনসহ আরো ১০টি ভবন উচ্ছেদ করেন।

সে সময় আবুল কালাম আজাদকে জরিমানাও করা হয়। কিন্তু এতেও তিনি ক্ষান্ত হননি। সম্প্রতি ভাঙ্গুড়া থানা ভবনের ১৫০ ফুট দক্ষিণে আবারও প্রায় দুই একর জমি দখল করে পুকুর খননের কাজ শুরু করেছেন।

এরই মধ্যে রেলের লোকজন ওই স্থান পরিদর্শন করলেও কাজ বন্ধ হয়নি। আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ ভাঙ্গুড়া উপজেলা চেয়ারম্যান বাকী বিল্লাহর ছোট ভাই।

রেলওয়ে সূত্র মতে, আইন অনুযায়ী রেলের জমিতে ব্যক্তি উদ্যোগে শ্রেণি পরিবর্তনের কোনো সুযোগ নেই। কারণ জমির শ্রেণির ওপর ইজারার টাকার হার নির্ধারণ করা হয়। তাই রেলের সমতল জমিতে পুকুর খনন করা সুস্পষ্ট আইন লঙ্ঘন। এ ক্ষেত্রে আইন অমান্যকারীর জেল-জরিমানার বিধান রয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঈশ্বরদী-সিরাজগঞ্জ লাইনের ভাঙ্গুড়া রেলস্টেশন থেকে এক কিলোমিটার পূর্বে রেললাইনের পাশে তিনটি এক্সকাভেটর মেশিন দিয়ে কাটা হচ্ছে মাটি।

এরই মধ্যে প্রায় ১০ ফুট গভীর করে দুই একর আয়তনের জমির বিভিন্ন অংশে গর্ত করা হয়েছে। এই জমির পশ্চিম ও উত্তর পাশে কৃষকরা বোরো ধান চাষ করেছে। পুকুর খনন করা হলে এই জমিগুলো ভাঙনের ঝুঁকিতে পড়বে।

অবৈধভাবে রেলের জমির শ্রেণি পরিবর্তনের বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আগে থেকেই রেলের এই জমি নিচু ছিল। তাই গর্ত করে মাছ চাষের উপযোগী করছি। ’

ভাঙ্গুড়া থানার ওসি ফয়সাল বিন হাসান বলেন, ‘রেলের জমি অবৈধভাবে খননের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পাকশী অঞ্চলের ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান স্যারকে জানিয়েছি। তাঁরা ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। ’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদ হাসান খান বলেন, ‘দ্রুত রেলের জমি থেকে এক্সকাভেটর মেশিন সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ’

রেলের পাকশী অফিসের বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান বলেন, ‘এর আগেও এই ব্যক্তি অন্যায় করেছেন। এবার তাঁর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এরই মধ্যে এ ব্যাপারে ইউএনও এবং এসি ল্যান্ডকে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ’

রাজশাহী রেলের প্রধান ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, ‘অবৈধ দখল ও জমির শ্রেণি পরিবর্তনকারীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে নির্দেশ দেওয়া হবে। ’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন