ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে ভারতে

প্রকাশিত: ডিসে ৫, ২০২১ / ১১:৩৪পূর্বাহ্ণ
ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে ভারতে

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন সংক্রমণপ্রবণ ওমিক্রন হানা দিয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারতে। প্রথমে কর্নাটকে দুজনের শরীরে ওমিক্রন ধরা পড়ে। এরপর গুজরাট ও মুম্বাইয়েও এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ব্যক্তির খোঁজ পাওয়া যাগেছে। জনসংখ্যাবহুল রাষ্ট্রটিতে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শনিবার চতুর্থ ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া যায় মুম্বাইয়ে। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দুবাই এবং দিল্লি হয়ে মুম্বাইয়ে পা রেখেছেন ওই ব্যক্তি। ৩৩ বছরের ওই ব্যক্তির কোভিড টিকার একটি ডোজও নেওয়া ছিল না। ২৪ নভেম্বর বিমানবন্দরে নামার পর তার গায়ে হালকা জ্বর ছিল। তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই কল্যাণ-ডোম্বিভালি কোভিড কেয়ার সেন্টারে তাকে ভর্তি করা হয়।

জেনোম সিকোয়েন্সিং করার পর জানা যায়, তিনি ওমিক্রন আক্রান্ত। হালকা জ্বর ছাড়া ওই ব্যক্তির শরীরে অন্য কোনো কোভিড উপসর্গ দেখা যায়নি বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। ইতিমধ্যেই ওই ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা ৩৫ জনকে চিহ্নিত করে কোভিড পরীক্ষা করা হয়েছে। তাছাড়া দিল্লি থেকে মুম্বাইয়ের বিমানে ওই ব্যক্তির ২৫ জন সহযাত্রীর করোনা টেস্ট করা হয়েছে। প্রত্যেকের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

মহারাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জাম্বিয়া থেকে মুম্বাইতে আসা ৬০ বছর বয়সি ব্যক্তির শরীরে ওমিক্রন পাওয়া যায়নি। তার শরীরে পাওয়া গিয়েছে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। শনিবার বিকালেই ভারতের তৃতীয় ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে গুজরাতের জামনগরে। কয়েকদিন আগেই জিম্বাবোয়ে থেকে ফিরেছেন ওই ব্যবসায়ী। দিল্লিতে ইতিমধ্যেই ১১ জনের শরীরে এই নয়া প্রজাতির সংক্রমণ হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে তাদের রিপোর্ট পজিটিভ এলেও তারা ওমিক্রন আক্রান্ত কি না তা নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বেঙ্গালুরুতে প্রথম দুজন ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া যায়। একজন ৪৬ বছরের স্বাস্থ্য কর্মী। অন্য একজন ৬৬ বছরের বিদেশি। ৬৬ বছরের ওই ব্যক্তি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে বেঙ্গালুরু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পা রাখেন। তারপর তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। করোনার দুটি টিকা তার নেওয়া ছিল।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন