বিভিন্ন দেশ যেভাবে আফগান শরণার্থীদের ঢেউ সামলাচ্ছে

প্রকাশিত: আগ ২২, ২০২১ / ০৯:২১অপরাহ্ণ
বিভিন্ন দেশ যেভাবে আফগান শরণার্থীদের ঢেউ সামলাচ্ছে

দীর্ঘ দুই দশক পর তালেবান আফগানিস্তানের শাসন ক্ষমতা দখলের পর দেশ ছাড়তে মরিয়া হয়ে উঠেছে হাজার হাজার সাধারণ মানুষ। গত সাতদিনে কাবুল বিমানবন্দরে আফগানিস্তান ছেড়ে পালানোর চেষ্টাকালে অনন্ত সাতজন নিহত হয়েছে।

কোনো কোনো দেশ আফগান নাগরিকদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য নিজেদের দেশের দরজা উন্মুক্ত করে দিয়েছে। আবার কোনো কোনো দেশ শরণার্থীদের ঠেকাতে সীমান্তে তুলে দিয়েছে কাঁটাতারের বেড়া। আফগান শরণার্থীদের নিয়ে বিভিন্ন দেশ কী পদক্ষেপ নিল জেনে নেওয়া যাক।

ইরান
আফগান সীমান্তবর্তী তিন প্রদেশে আশ্রয় নেওয়া আফগান শরণার্থীদের জন্য তাবু তৈরি করে দিয়েছে ইরান সরকার। জাতিসংঘের সূত্র অনুযায়ী ইরানে এরই মধ্যে ৩৫ লাখের মতো আফগান শরণার্থী রয়েছে।

পাকিস্তান
তালেবান ক্ষমতা দখল করছে আফগান সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে চলতি বছরের জুন মাসেই জানিয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তবে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর পাকিস্তান অন্তত একটি সীমান্ত খুলে রেখেছে আর সেই সীমান্ত নিয়ে কয়েজ হাজার আফগান পাকিস্তানে প্রবেশ করেছে বলে বিভিন্ন প্রতিবেদনে জানা গেছে।

উজবেকিস্তান
প্রায় দেড় হাজার আফগান উজবেকিস্তানে আশ্রয় নিয়েছে বলে জানা গেছে। তবে শুধু বৈধ পাসপোর্টধারীরাই উজবেকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্ত পার হতে পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

যুক্তরাজ্য
দীর্ঘ মেয়াদে বিশ হাজার আফগান শরণার্থীদের আশ্রয় দেবে বলে ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাজ্য।

যুক্তরাষ্ট্র
ঠিক কত সংখ্যক আফগান শরণার্থীকে যুক্তরাষ্ট্র আশ্রয় দেবে তা জানা যায়নি। তবে আফগান শরণার্থী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দ দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

কানাডা
২০ হাজান আফগান নাগরিকদের আশ্রয় দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে তালেবান। তবে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী আর নারী নেত্রীসহ ঝুঁকিতে থাকা আফগানদের আগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে দেশটি।

অস্ট্রেলিয়া
তিন হাজার আফগানকে আশ্রয় দেবে অস্ট্রেলিয়া। এজন্য বিশেষ ভিসা কর্মসূচি চালু করেছে দেশটি।

উগান্ডা
দুই হাজার আফগান শরণার্থীকে আশ্রয় দেবে বলে ঘোষণা দিয়েছে উগান্ডা।

তাজিকিস্তান
সঠিক সংখ্যা জানা না গেলেও কয়েকশ’ আফগান তালেবান ক্ষমতা দখলের পর তাজিকিস্তানে প্রবেশ করেছে বলে জানা গেছে। তাদের মধ্যে আফগান সেনাবাহিনীর সদস্যও রয়েছে। অবশ্য এক লাখ আফগান শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি রয়েছে বলে চলতি বছরের জুলাইতে জানিয়েছিল তাজিকিস্তান।

তবে ২০১৫ সাল থেকে ইউরোপের দেশগুলো শরণার্থীদের ঢেউ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে। এর মধ্যে নতুন করে আফগান শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়ার মতো অবস্থা নেই বলে জানিয়েছে তুরস্ক, গ্রিস, অস্ট্রিয়াসহ কয়েকটি দেশ। এমনকি তুরস্ক আর গ্রিস আফগান শরণার্থীদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া এবং দেয়াল তুলে দিয়েছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন